আন্তর্জাতিকCorona Virus

হু-র শীর্ষ বিজ্ঞানী স্বামীনাথনের ভরসা ,এ বছরের শেষেই আসতে পারে করোনার টিকা

GNE NEWS DESK : বিশ্ববাসী এখন এক সংকটকালীন অবস্থার মধ্যে বসবাস করছে। পৃথিবীর প্রত্যেকটি দেশ মরিয়া হয়ে উঠেছে ভ্যাকসিন আবিষ্কার এর জন্য। এবছর আদিও ভ্যাকসিন আবিষ্কার হবে কিনা এবং হলেও তা কবে হবে সেই বিষয় নিয়ে নানান মহলে নানান মতবাদের সৃষ্টি হয়েছে। এর মাঝেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার শীর্ষ বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীনাথন বললেন, করোনার টিকা ট্রায়াল’ দ্রুত গতিতে চলছে, এ বছরের শেষে অথবা আগামী বছরের একদম প্রথমেই বেরিয়ে যেতে পারে করোনার ভ্যাকসিন”। স্বামীনাথন এর বক্তব্য বিশ্বে এখন ৪০ রকমের কোভিড ভ্যাকসিন ক্যানডিডেটের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে। ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পর্বের ট্রায়াল চলছে ব্রিটেনের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি, ফাইজার ও বায়োএনটেক, চিনের সিনোফার্মা, আমেরিকার মোডার্নাতে।

ভারতের সেরাম ও ভারত বায়োটেকের টিকা ও চূড়ান্ত পর্বের ক্লিনিক্যাল করছে। স্বামীনাথনের দাবি,” এ বছরের শেষেই ভ্যাকসিন এর টিকা আবিষ্কার হতে পারে যদি এই ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিগুলি তাদের সেফটি ট্রায়ালে পাশ করে যায়। তাড়াহুড়ো করে ভ্যাকসিন আবিষ্কার করার পক্ষপাতি ছিলেন না স্বামীনাথন। তার মতে কোন কিছু করার আগে যথেষ্ট ভেবে চিন্তে করা উচিত। মানুষের শরীরে এটা প্রয়োগ করার পর ঠিক কি রকম ফল পাওয়া যাবে সে বিষয়ে নিশ্চিত না হয়ে ঝুঁকি নেওয়া একেবারেই উচিত নয়। নিরাপত্তার জন্য প্রথমে ল্যাবরেটরীতে সেফটি ট্রায়ালের প্রয়োজন। সমস্ত রকম ট্রায়াল’ শেষ করার পরেই হু এর নির্দেশ অনুযায়ী টিকা নিয়ে আসা উচিত। ফোর বিজ্ঞানীরা বলেছেন, “একদম প্রথম পর্বে দেখা হয় এই টিকার কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে কিনা যদি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হয় তাহলে সেটা কতদিন স্থায়ী পর হচ্ছে এরপর এই দুই পর্বে শেষে রক্তে অ্যান্টিবডি পরিমাণ নির্ণয় করা হয়।

অবশেষে চূড়ান্ত পর্বে নিশ্চিত হওয়ার জন্য কয়েক হাজার জনকে এই টিকা দেওয়া হয়। চূড়ান্ত পর্বে অনেক সময় অনেক কঠিন রোগে আক্রান্ত মানুষকে এই টিকার ডোজ দিয়ে তার ফলাফল লক্ষ করা হয়‌। সমস্ত বিষয় নিশ্চিত হয়েই এই পিকটা রোগের জন্য সবুজ সঙ্কেত দেয় ভ্যাকসিন রেগুলেটরি কমিটি। স্বামীনাথন এর মতে, “অনেক বেশি চাইছে এই সমস্ত পর্যায়গুলি অতিক্রম করার আগেই টিকা আবিষ্কার করে ফেলতে কিন্তু তৃতীয় পর্বের ট্রায়ালের আগে যদি টিকা আবিষ্কার করে ফেলা হয় তাহলে তার ফলাফল দিতে পারে এক হতে পারে তার কোনো রকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে যা অত্যন্ত চিন্তার কারণ তাছাড়া টিকা যদি একবার চলে আসে তাহলে চূড়ান্তপর্বের ট্রায়াল’ মাঝপথেই থেমে যাবে এর ফলে স্বেচ্ছাসেবকদের শরীরে ঠিক কি রকম প্রতিক্রিয়া হচ্ছে সেটার পর্যবেক্ষণ করা যাবে না।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel