জেনে নিন

আপনি কি কাঁচা কলা খান? জেনে নিন কাঁচা কলার উপকারিতা ও সতর্কবার্তা

পাকা কলার অনেক উপকারিতা সম্পর্কে আপনি সচেতন। কিন্ত কাঁচা কলার উপকার সম্পর্কে সাধারণত অনেক লোকেরা জানেন না। কাঁচা কলা পটাসিয়ামের একটি ভাণ্ডার, যা কেবল রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা শক্তিশালীই করে না, সারা দিন শরীরকে সচল রাখে। এতে উপস্থিত ভিটামিন বি 6 ভিটামিন সি কোষগুলিকে পুষ্ট করার জন্য কাজ করে। কাঁচা কলাতে স্বাস্থ্যকর স্টার্চের পাশাপাশি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে নিয়মিত একটি কাঁচা কলা খাওয়া খুব উপকারী প্রমাণ করতে পারে।

কাঁচা কলার উপকারিতা :
১.যারা ওজন কমাতে চেষ্টা করছেন তাদের প্রতিদিন একটি কলা খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার পাওয়া যায় যা অপ্রয়োজনীয় ফ্যাট কোষ এবং অমেধ্য পরিষ্কার করতে সহায়ক।
২.কাঁচা কলাতে ফাইবার এবং স্বাস্থ্যকর স্টার্চ থাকে। যা অন্ত্রের মধ্যে কোনও প্রকার অপরিষ্কার জমাট বাধা দেয় না। এমন পরিস্থিতিতে আপনার যদি প্রায়শই কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থাকে তবে কাঁচা কলা খাওয়া আপনার পক্ষে খুব উপকারী।
৩. কাঁচা কলায় উপস্থিত ফাইবারস এবং আরও অনেক পুষ্টি খিদা নিয়ন্ত্রণে কাজ করে।

৪. আপনার যদি ডায়াবেটিসের অভিযোগ থাকে এবং এটি প্রাথমিক আকারে থাকে তবে এখন থেকে কাঁচা কলা খাওয়া শুরু করুন। এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের উপযুক্ত ওষুধ হিসেবে কাজ করতে পারে।
৫. নিয়মিত কাঁচা কলা সেবন হজমে উন্নতি করে। কাঁচা কলা খেলে হজম রস হজমে উন্নতি হয়।
৬.এ ছাড়া কাঁচা কলা বিভিন্ন ধরণের ক্যান্সার প্রতিরোধেও সহায়ক।
৭.কাঁচা কলায় উপস্থিত ক্যালসিয়াম হাড়কে মজবুত করতে সহায়তা করে।

সতর্কবার্তা : কাঁচা কলা খাওয়ার কিছু অসুবিধা হতে পারে। বেশি পরিমাণে কাঁচা কলা খেলে অনেকগুলি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আপনার শরীরে হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, কাঁচা কলা আপনাকে অ্যাসিড রিফ্লাক্স, বুক জ্বলন, বমি বমি ভাব, সাধারণভাবে পেট খারাপ, হালকা এবং মারাত্মক পেট ফাঁপা, পেট ফাঁপা, ডায়রিয়াও হতে পারে। পাচনতন্ত্রের সমস্যা যেমন গ্যাস্ট্রোসফেজিয়াল রিফ্লাক্স, পেটের প্রদাহ (গ্যাস্ট্রাইটিস), জ্বালাময়ী অন্ত্র সিন্ড্রোম ইত্যাদি বৃদ্ধি পেতে পারে।

Tags
Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Close