জেনে নিন

করলা স্বাদে তিক্ত হলেও এর উপকারগুলি অবশ্যই মিষ্টি

সবুজ শাকসবজির মধ্যে করলা স্বাদে তিক্ত মনে হতে পারে তবে এর উপকারগুলি অবশ্যই মিষ্টি। করলার এই স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে কি আপনি জানেন? যদি আপনি না জানেন, তবে করলার এই উপকারগুলি পড়ুন

করলার উপকারিতা:
১. ফসফরাস করলায় পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায়। এটি কফ, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং হজমজনিত সমস্যা দূর করে।
২. হাঁপানি রোগের ক্ষেত্রে করলা খুব লাভদায়ক। হাঁপানিতে তেতো সবজি খাওয়া উপকারী।
৩. গ্যাস এবং বদহজম করলার নিরাময় করতে সাহায্য করে।
৪.করলার রস লিভারকে শক্তিশালী করে এবং লিভারের সমস্ত সমস্যা দূর করে। এক সপ্তাহের মধ্যে এই দৈনিক ফলাফলের ব্যবহার। এটি জন্ডিসেও উপকারী।

৫. করলার সিদ্ধ করে খেলে প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং যেকোন সংক্রমণ নিরাময়ে নিরাময় হয়।
৬. আপনার যদি বমিভাব বা ডায়রিয়া বা কলেরা হয় তবে করলার রস খেলে উপকার পাওয়া যায়।
৭. পক্ষাঘাতের রোগের ক্ষেত্রে করলা একটি খুব কার্যকর।
৮. করলা রক্ত ​​পরিষ্কার করার জন্য অমৃতের মতো। এটি ডায়াবেটিসে খুব কার্যকর বলে বিবেচিত হয়।
৯. করলার রস কিডনির সমস্যায় খুব উপকারী।

১০. করলা হার্টের সমস্যার জন্য ভাল চিকিৎসা। এটি হার্টের ধমনীতে ক্ষতিকারক চর্বি জমতে দেয় না, যার ফলে রক্ত ​​সঞ্চালন বজায় থাকে এবং হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা কম করে।
১১. করলার রস লেবুর রস মিশ্রিত মুখে লাগিয়ে ফোঁড়া নিরাময় করে এবং ত্বকের রোগ সারে।
১২. ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করতে করলার রস খাওয়া খুব উপকারী।
সতর্কবার্তা : করলা কেনার সময় কেবল তাজা এবং সবুজ করলা বেছে নিন। হলুদ বা কমলা দাগ দাগযুক্ত করলা কেনা এড়িয়ে চলুন। করলার সবজি বা এর রস তৈরির আগে সর্বদা ঠাণ্ডা জলের সাথে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। যদি আপনি করলার তিক্ততা কমাতে চান তাহলে করলার টুকরোগুলি ১০ মিনিটের জন্য নুন জলে ভিজিয়ে রেখে রান্নার জন্য ব্যবহার করুন।করলার রসের স্বাদ উন্নত করতে আপনি এটিতে মধু, গাজর বা আপেলের রস যোগ করতে পারেন। অতিরিক্ত করলা খেলে হালকা পেটে ব্যথা বা ডায়রিয়া হতে পারে। গর্ভবতী মহিলাদের অত্যধিক তেতো খাওয়া এড়ানো উচিত।

Tags
Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Close