জেনে নিনরাজ্য

করোনার আবহে দুর্গাপুজোয় হচ্ছে প্যান্ডেলের কাঠামোগত পরিবর্তন, জেনে নিন কী কী পরিবর্তন করা হচ্ছে…

GNE NEWS DESK:মহামারীর দাপটে সারা পৃথিবী জুড়ে চলছে মৃত্যু মিছিল। এই মৃত্যু মিছিল অথবা সংক্রমনের প্রভাব আটকানোর একটাই পথ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, কিন্তু করোনা আবহে দুর্গাপূজায় সেটা কি আদৌ সম্ভব। কিন্তু এখানে বিষয়টা হলো অসম্ভব কে সম্ভব করে তোলার। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন যদি মানুষ দুর্গাপূজায় আনন্দ করতে গিয়ে একটু অসতর্ক হয় তাহলে এক মুহূর্তে সেই আনন্দ নিরানন্দে পরিণত হতে পারে।

তবে সাধারণ মানুষের আনন্দ জাতে নিরানন্দে পরিণত না হয় প্রত্যেক পুজো কমিটিকেও সে বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে। করোনা আবহে আমরা এবছর দুর্গাপুজো কিছুটা হলেও অন্য রকম ভাবে পালন করব। হয়তো আমরা সকলে এবছরেও মেতে উঠব উৎসবের দিন গুলিতে কিন্তু এবছর বদলে যাবে অনেক কিছুই। যার অন্যতম কারণ হলো করোনা ভাইরাস এর প্রভাব। সংক্রমনের প্রভাব এড়ানোর জন্য এবং মানুষের মনে আনন্দ দেওয়ার জন্য এবছর পুজো কমিটি গুলিও সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে এবং সাধারন মানুষের সুবিধার্থে সবরকম সহযোগিতা করবে।

সংক্রমনের মাত্রা এড়ানোর জন্য প্যান্ডেলের কাঠামো থেকে শুরু করে মা দুর্গার মূর্তি সবকিছুই হচ্ছে অন্য ধাঁচে। রাজ্য সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী এ বছর প্যান্ডেল করতে হবে উন্মুক্তভাবে। প্রত্যেক পুজো কমিটিকে চেষ্টা করতে হবে যতটা সম্ভব খোলামেলাভাবে প্যান্ডেল করার। যাতে প্যান্ডেলের মধ্যে হাওয়া বাতাস খেলতে পারে এবং দর্শনার্থীরা বাইরে থেকেই প্রতিমা দর্শন করতে পারে। এছাড়াও প্রবেশের জন্য এবং বাহির হওয়ার জন্য দুটি পথ এর ব্যবস্থা করতে হবে। যাতে মন্ডপের ভিতরে কোন ভাবেই ভীড় জমতে না পারে।

শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য মণ্ডপের ভিতর গোল দাগ কেটে দেওয়া হবে। এর পাশাপাশি দর্শনার্থীরা যাতে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখে সেই জন্য মাইকে বারবার ঘোষণা করতে হবে। এ বছর প্রত্যেক পুজো কমিটিকেই আলোকসজ্জার থেকে সাবেকিয়ানার ওপর বেশি জোর দিতে হবে যাতে কম বাজেটের মধ্যে সুন্দরভাবে পুজো সম্পন্ন করা যায়। আমরা প্রত্যেক বছর দেখি সকালের থেকে রাতে পুজো মণ্ডপগুলোতে ভিড়ের পরিমাণ বেশি এর অন্যতম কারণ হলো আলোকসজ্জা।

এবছর মন্ডপের ভিতর চাকচিক্য আলোকসজ্জা যতটা সম্ভব কমাতে হবে যাতে মানুষ কেবলমাত্র রাতে প্রতিমা দর্শন না করে সারাদিন ধরে করতে পারে। এতে ভিড়ের মাত্রা এড়ানো যাবে বলে আশা রাখছেন পুজোকমিটি গুলি।

এছাড়াও প্যান্ডেল এর উচ্চতা ও প্রতিমার উচ্চতা যথাসম্ভব সামঞ্জস্যপূর্ণ রাখতে হবে। এর পাশাপাশি জানা গেছে করোনা সংক্রমনের জন্য প্রত্যেক বছরের অন্যতম আকর্ষণ রেড রোডের কার্নিভাল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে এভাবেই আমরা উৎসবে মেতে উঠবো।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel