শহীদ স্মরণে, ভালোবাসার দিনে রক্তের বন্ধন গড়ে তুলতে প্রয়াসী হল ‘দুঃস্থের ছায়া’

14 February 2020, 7:57 pm, 461 Views

মণিরাজ ঘোষ, মেদিনীপুর, ১৪ ফেব্রুয়ারি :

আজ ভালোবাসার দিন! কিন্তু, ২০১৯ এর ১৪ ফেব্রুয়ারি দিন’টি এদেশের ইতিহাসে এক পরম বেদনার বার্তা নিয়ে এসেছিল। পুলওয়ামা হত্যাকাণ্ডে ভারতবর্ষের ৪০ জন বীর শহীদ হয়েছিলেন! তাই, ভারতবাসীর কাছে, ভ্যালেন্টাইন্স ডে’ এক অভিশপ্ত ও রক্তাক্ত দিনও, সেই হিসেবে।

কিন্তু, রক্তাক্ত ইতিহাস আমরা ভুলতে চাই সকলেই। ভালোবাসার স্পর্শে জড়িয়ে থাকাই আমাদের কাম্য! হৃদয়ে তাই বাবলু সাঁতরা’র মতো শহীদদের স্থান দিয়ে, ভালোবাসার অর্ঘ্য নিবেদন করতে প্রয়াসী আপামর বাঙালি তথা দেশবাসী।

আজকের দিনটিতে তাই, ঐক্য আর মানবতার বার্তা দিয়ে রক্তদানের মেলবন্ধনে সামিল হল, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার অন্যতম এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘দুঃস্থের ছায়া’। মেদিনীপুর জেলা ভলেন্টিয়ারি ব্লাড ডোনার্স ফোরাম এ্যাসোসিয়েশনের সহযোগিতায়, তাদের জেলা কার্যালয়ে আজ সকাল থেকে ‘দুঃস্থের ছায়া’র সক্রিয় উদ্যোগ ও পরিচালনায় এই রক্তদান শিবির অনুষ্ঠিত হয়। মোট ৫৪ জন স্বেচ্ছায় রক্তদান করলেন, এই শিবিরে। এছাড়াও, আরো অনেক উৎসাহী ও ইচ্ছুক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হয়েছিলেন, আজকের এই বিশেষ দিনে রক্তদান করার বাসনা নিয়ে। তবে অধিক পরিকাঠামোর অভাবে, কেবল ৫৪ জনেরই রক্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উদ্যোক্তারা। আজকের শিবিরে, যুবক- যুবতী ও প্রথম রক্তদাতাদের উৎসাহ ও উদ্দীপনা ছিল উল্লেখ করার মতো। উপস্থিত ছিলেন, শহরের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সদস্য ও কর্মকর্তাগণ, ব্লাড ডোনার্স ফোরামের অসীম ধর সহ অন্যান্য বিশিষ্ট সদস্যরা।

‘দুঃস্থের ছায়া’ র পক্ষ থেকে ওয়াসিম আহমেদ বললেন, ” আজকের এই রক্তদান শিবির এক মিলনমঞ্চে পরিণত হয়েছিল! আমাদের প্রত্যেক সদস্যদের সক্রিয় সহায়তা ছাড়াও, ভলেন্টিয়ারি ব্লাড ডোনার্স ফোরাম এসোসিয়েশনের সহযোগিতা এবং বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ও গুণীজনদের আন্তরিকতায় আমরা মুগ্ধ হয়েছি। অনেক অনেক মানুষ আজ উপস্থিত না থাকলেও, তাঁরা যেভাবে আমাদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন, তা উল্লেখ না করলেই নয়! আজকের এই বিশেষ দিনে পুলওয়ামার শহীদদের স্মরণ করার জন্য এই রক্তদানের মেলবন্ধন গড়ে তুলতে আমরা সচেষ্ট হয়েছিলাম। আমাদের প্রচেষ্টা সার্থক হয়েছে। ৫৪ জন রক্তদাতা ছাড়াও, আরো অন্তত ২৫-৩০ জন আজ রক্তদান করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু, পরিকাঠামোগত অভাব থাকার জন্য রক্তগ্রহণকারী কর্তৃপক্ষের পক্ষে এর থেকে অধিক সম্ভব হয়নি!”

Leave a Comment.