জেলা

মেলেনি কোন সরকারি সুবিধা, ভাঙা ঘরে কোনমতে দিন কাটে বৃদ্ধার

বাঁকুড়া:বয়স ষাটের উপরে হবে। স্বামী মারা গিয়েছেন ১৫ বছর আগে। সংসারে কেউ নেই। নেই কোন আত্মীয়-স্বজনও। তাই কোন মতে দিন কাটছে বাঁকুড়ার সারেঙ্গা ব্লকের গোপালডাঙার বাসিন্দা দিপালী মাহাতর। জানা গেছে, সহায় সম্বলহীন এই বৃদ্ধা কোনমতে চাল ফুটিয়ে ক্ষুধা নিবারণ করেন। এখন লকডাউন বলে নয়, সারা বছরই এভাবেই চলে তাঁর। বার্ধক্য ভাতা, বিধবা ভাতা সহ সরকারের কোন সুবিধায় এসে পৌঁছায়নি এই কুঁড়ে ঘরে। স্থানীয় কিছু যুবক ত্রাণ দিতে গেলে ওই বৃদ্ধার দুর্দশার ছবি প্রকাশ্যে আসে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সামাজিক সংগঠন কুড়মি সেনার দুই সদস্য অভিজিৎ মাহাত ও সজল মাহাত স্বরাজ ইন্ডিয়ার ঝাড়গ্রাম শাখার সহযোগিতায় ত্রাণ পৌঁছে দিতে গেলে বিষয়টি নজরে আসে তাদের। এই দুই যুবক বিষয়টি স্যোশাল মিডিয়ায় তুলে ধরেন। এরপর অবশ্য অনেকেই ওই বৃদ্ধাকে সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন। স্বরাজ ইন্ডিয়ার নেতা অশোক মাহাত জানিয়েছেন, জঙ্গলমহলের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এই ধরনের সহায় সম্বলহীন বহু মানুষ রয়েছেন। যারা সরকারি সমস্ত সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। আমরা সবার কাছে পৌঁছাতে পারছি না। তবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াতে।

সজল মাহাত জানিয়েছেন, শেফালী দেবীর ওই কুঁড়েঘরটি যে জায়গার উপর রয়েছে সেটি ওনার জায়গা নয়। তাই সরকারি প্রকল্পে বাড়ি পাননি তিনি। আমরা ওনার ঘরটি সারিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছি। তবে কোন সহৃদয় ব্যক্তি সাহায্য করতে এগিয়ে এলে খুব উপকার হয়।

Tags
Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Close