অভিনব কর্মসূচি সিপিএম এর! করোনা আক্রান্ত দের পাশে দাড়াতে হাজির ‘ রেড ভলেন্টিয়ার ‘ !

Fancy CPM’s program! ‘Red Volunteer’ appeared to stand by the victims of Corona!

GNE NEWS DESK: করনা আক্রান্তের থেকে করোনা সংক্রমণ নিয়ে গুজব ও ভয় মানুষের মনে এখন অনেক বেশি। মানুষ করোনা এর বিরুদ্ধে অনেকটাই সচেতন হয়ে উঠেছে ঠিকই কিন্তু তবুও আক্রান্তদের ওপর মানুষের অমানবিক ব্যবহার এখনও চলছে। বেশিরভাগ সময়ই কেউ আক্রান্ত হলে তাকে ফেলে রেখে দেওয়া হচ্ছে, কেউ মারা গেলে তার মৃতদেহ সৎকার করা যাচ্ছে, না কাউকে হাসপাতালে পৌঁছানোর প্রয়োজন পড়লে এখনও অনেকেই মানবিকতার হাত বাড়িয়ে দিতে দ্বিধা বোধ করছেন নিজে সংক্রমিত হয়ে যাওয়ার ভয়ে।  তাই এ বার করোনা আক্রান্ত ও তাঁদের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে সব রকমের সহযোগিতা করতে স্বেচ্ছাসেবক দল তৈরি করল সিপিএম।  হাবড়া শহর (habra town) এরিয়া কমিটির পক্ষ থেকে শহরের করোনা আক্রান্তদের সাহায্য করতে বাছাই করা কয়েকজনকে নিতে তৈরি হয়েছে ‘রেড ভলান্টিয়ার’ নামে একটি বাহিনী।

ওই এলাকায় কিছুদিন আগে করোনা এর টেস্ট হয়েছিল। তার মধ্যে সতেরো জনের শরীরে করোনার জীবাণুর ধরা পড়ে। করণা পজিটিভ বেরোনোর পর ইতিমধ্যেই ওই রেড ভলেন্টিয়ার এর দল কাজকর্ম শুরু করে দিয়েছে। সিপিএমের হাবড়া এরিয়া কমিটির সম্পাদক আশুতোষ রায়চৌধুরী (Ashutosh Rai chaudhari) বলেন, ‘‘ওই ১৭ জন-সহ মূলত ছাত্র-যুবদের নিয়ে রেড ভলান্টিয়ার নামে ৫০ জনের স্বেচ্ছাসেবক দল তৈরি করা হয়েছে। হাবড়া শহরে করোনায় আক্রান্ত যে কোনও মানুষকে আমরা ধরনের সাহায্য করছি। স্বেচ্ছাসেবক দলে যুক্ত হতে চেয়ে অনেকেই আগ্রহ প্রকাশ করছেন। ভবিষ্যতে আমরা সদস্য সংখ্যা বাড়াব।’’ সাহায্য করতে ইচ্ছুক যেকোনো ব্যাক্তি আসতে পারেন বলে জানান তিনি।

ইতিমধ্যেই জোরকদমে কাজকর্ম শুরু হয়ে গিয়েছে। রেড ভলেন্টিয়ার এর সদস্যরা হাবরা স্টেট জেনারেল হাসপাতাল, হাসপাতাল চত্বর, স্টেশন বাজার সবকিছু জীবাণুমুক্ত করছেন। কিছুদিন আগেই হাসপাতাল চত্বরে করোনা আক্রান্ত হয়ে এক ব্যক্তির মৃতদেহ প্রায় ১১ ঘণ্টা বেওয়ারিশ হয়ে পড়েছিল ওই এলাকায়। জীবাণুমুক্ত হয়নি বলে প্রতিবেশীরা অভিযোগ তোলেন। রেড ভলেন্টিয়ার মৃতদেহটি উদ্ধার করে তারপর জায়গা টি জীবাণুমুক্ত করেছে। এছাড়াও যারা করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের বাড়ির সদস্যদের হোম আইসোলেশন এ থাকার ব্যবস্থা অনেক সময় করে দিচ্ছেন এনারা। করোনা জয়ীদের বাড়ি ফেরার আগে তাদের বাড়ি ও দ্বিতীয় বার জীবাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা করছেন।
 
কিভাবে কাজ করছেন এনারা সিপিএম সূত্রে জানা গিয়েছে। জানা গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় এবং অন্যান্য জায়গায় ফোন নাম্বার প্রচার করা হচ্ছে। মানুষজনদের আশ্বাস দেওয়া হচ্ছে দিন হোক বা রাত যেকোন সময়েই ওই নাম্বারে ফোন করে করোনা আক্রান্তের কথা বলতে পারেন মানুষজন এবং চাইতে পারেন সাহায্য । ভলেন্টিয়ার রা যেকোনো সময় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আছেন । তারা দিন বা রাত যখনই হোক কেউ করোনা আক্রান্ত হলে সমস্ত রকম স্বাস্থ্যবিধি মেনে সেখানে গিয়ে আক্রান্ত দের হাসপাতালে ভর্তি করে দেওয়ার ব্যবস্থা করবেন। অযথা কাউকে ভয় পেতে বা চিন্তা করতে অথবা কোন আক্রান্ত রোগীর সাথে খারাপ ব্যবহার করতে বারণ করছেন। তারা এছাড়াও করোনা এর পাশাপাশি ডেঙ্গু সর্তকতা জন্য তারা প্রচার করছেন। বেশ কিছু বছর আগে হাবড়া তে প্রকোপ দেখা দিয়েছিল ডেঙ্গির। ঠান্ডা জ্বর ,সর্দি কাশি ও শ্বাসকষ্ট হলে দেরি না করে হাসপাতালে গিয়ে করনা পরীক্ষার কথা বলা হচ্ছে ।কিন্তু জ্বর হলেই যে সেটা করোনা নয় এই আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। অযথা কাউকে বেশি ভয় পেতে এবং চিন্তা করতে বারণ করছেন এরা । এদের বক্তব্য এরা সবসময় মানুষের পাশে আছেন।

প্রসঙ্গত, হাবড়া শহরে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা এর আক্রান্তের সংখ্যা। পুরপ্রশাসক নীলিমেশ দাস বলেন, ‘‘শুক্রবার পর্যন্ত শহরে আক্রান্তের সংখ্যা ৪৮৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩৮১ জন। অ্যাক্টিভ রোগী ৯১ জন। মারা গিয়েছেন ১১ জন। পুরসভার তরফে আক্রান্তদের চিকিৎসার সব ব্যবস্থা করা হয়েছে।’’ 
এছাড়াও তিনি জানান রেড ভলেন্টিয়ার এটা যদি কোনো রকম রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থের করার জন্য কিছু না করে আক্রান্তদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য এই কাজ করছেন তাহলে তিনি তাদেরকে অনেক ধন্যবাদ এবং সাধুবাদ জানান। এছাড়া শহরবাসীদের মুখে শোনা গেল রেড ভলেন্টিয়ার দের জন্য প্রশংসা। তারা জানাচ্ছেন রাতবিরেতে অনেক সময় অনেক বাড়িতে আক্রান্ত রোগীকে নিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়েছে। পাশে দাঁড়ানোর মতো কেউ একজন আছে একথা ভেবে তারা বেশ আশ্বস্ত হচ্ছেন।
[qws]Tags: আপডেট খবর,বাংলা খবর,করোনা আপডেট, আজকের রাশিফল, bengalinews, ভারতের খবর, আজকের খবর, আবহাওয়ার খবর,ঝাড়গ্রাম, উপকারিতা, দেশের খবর, আজকের নিউজ,

Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel