জেলা

দূর্গা ঠাকুর তৈরি দেখতে গিয়ে বিদ্যুতের শক খেয়া ঝাড়গ্ৰামে প্রাণ হারাল অল্পবয়সী কিশোর-কিশোরী

ঝাড়গ্রাম : পূজা মন্ডপে দুর্গা ঠাকুর তৈরি দেখতে গিয়ে বিদ্যুৎপিষ্ট হয়ে মৃত্যু হল  এক কিশোর ও এক কিশোরীর । পূজা মন্ডপ থেকে তাঁদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁদের মৃত বলে ঘোষণা করে । এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঝাড়গ্রাম জেলার লালাগড় ব্লকের ধরমপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বামাল গ্রামের । মৃত কিশোরের নাম রাহুল পাত্র ( ১১) , রাহুল লালাগড় রামকৃষ্ণ বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র এবং মৃত কিশোরীর নাম সুমিত্রা সিং ( ১২) , সুমিত্রা ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী  বামাল এমএসকে বিদ্যালয়ের । গ্রামবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানাযায় , বামাল গ্রামের বামাল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে রয়েছে বামালশিনী সর্বজনীন দুর্গোৎসব এর দুর্গাপূজার পাকাপোক্ত বেদী । প্রতিবছর দুর্গাপূজার সময় এই বেদীর মধ্যে তৈরি করা হয় দুর্গা ঠাকুর । রাত্রেও চলে প্রতিমা তৈরীর কাজ । রাত্রে প্রতিমা তৈরীর জন্য বামাল গ্রামের এক গ্রামবাসীর বাড়ি থেকে বাল্ব জ্বালানোর জন্য বিদ্যুতের তার নিয়ে আসা হয়েছিল বেদীতে ঢোকার লোহার গ্রিলের মধ্য দিয়ে । অভিযোগ, বারবার লোহার গ্রিল খোলা এবং বন্ধ করার জন্য বিদ্যুতের তার পাতলা হয়ে লোহার গ্রিলের সঙ্গে বডি হয়ে গেছিল । গতকাল সন্ধ্যায় ১১ বছরের রাহুল পাত্র এবং ১২ বছরের সুমিত্রা সিং দুর্গা ঠাকুর দেখতে বেদীতে যায় এবং ভুল করে লোহার গ্রিল ধরে ফেলে । এর ফলেই ঘটে বিপত্তি । জানা যায় সেই সময় বেদীর কাছে কেউ ছিলনা মিনিট দশেক পর অন্য এক ছেলে তাদের দেখতে পাই লোহার গ্রিলের সঙ্গে চিটে রয়েছে তারা । তাঁদের না ছুঁয়ে ওই ছেলে ছুটে গিয়ে স্কুল মাঠের মোড়ে বসে থাকা গ্রামবাসীদের বিষয়টি জানান । গ্রামবাসীরা ছুটে এসে বাঁশ দিয়ে প্রথমে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে এবং তাদের দুজনকে উদ্ধার করে লালগড় প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয় । লালগড় প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত বলে ঘোষণা করে । রবিবার ঝাড়গ্রাম হাসপাতালে পুলিশ মর্গে তাদের ময়নাতদন্ত হয় । এই ঘটনার পরে শোকের ছায়া নেমেছে লালগড়ের বামাল গ্রামে ।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel