জেলা
Trending

পটের দেওয়ালি দুর্গা দেখতে চলে আসুন লালগড়, আপনার জন্য অপেক্ষা করছে প্রকৃতিও

অভিজিৎ বেরা, লালগড়: মাওবাদীদের অন্ধকার অতীত ভুলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের ছোঁয়ায় সেজে উঠেছে লালগড়।শাল-মহুলের জঙ্গলে নিজেকে হারিয়ে দিতে এবার পুজোয় ছোট্ট টুরে ঝাড়গ্রাম বা মেদিনীপুর থেকে চলে আসতে পারেন প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি লালগড়ে।

লালগড়ের দুর্গোৎসব:লালগড়ে দুটি পুজো হয়ে থাকে

১.প্রথমটি-লালগড় রাজবাড়ীর ঐতিহ্য প্রাচীন লালগড়ের পটের দূর্গা।এটি বছরের যে কোন দিন লালগড় এলে আপনি দেখতে পাবেন। এর সাথে জুড়ে আছে লালগড় রাজপরিবারের ও এলাকার অনেক ইতিহাস। ইতিহাস ডুব দিতে যারা ভালোবাসেন তার অবশ্যই এখানে ছুটে আসবেন।এর সাথে উপরি পাওনা হিসেবে থাকছে লালগড় রাজ প্যালেস,রাজার বাঁধ,আর বিডিও অফিস পেরিয়ে কিছুটা গেলেই আপনার মন প্রাণ ভরিয়ে দিতে আপনার জন্য অপেক্ষা করছে লালগড় জঙ্গল।

২.লালগড়ের দ্বিতীয় পুজো: লালগড় সার্বজনীন দূর্গোৎসব।এটি লালগড় গ্রামবাসীদের মিলিত একটি দুর্গাপুজো। লালগড় লাইব্রেরী মোড়ে এই পুজো অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। গ্রাম বাংলার খাঁটি পুজো বলতে যা বোঝায় এখানে এলেই আপনি তা দেখতে পাবেন।তবে সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্যান্ডেলে কয়েক বছর ধরে বিশেষত্ব দেখা গেছে,এবছরো তার ব্যতিক্রম নয়।তবে রাজ্য সরকারের করোনাবিধি মেনে এ বছরের প্যান্ডেল করা হচ্ছে। এখানেও রয়েছে উপরি পাওনা। আপনার মন যদি চায় চলে যেতে পারেন কাঁসাই নদীর বালুচরে।সামনেই রয়েছে শাখাঁখ্যুলার মাঠ, গনগনীর ছোট্ট সংস্করণ দেখতে এখানে আসতেই পারেন।

কীভাবে যাবেন- ঝাড়গ্রাম থেকে লালগড় যাওয়ার জন্য দুটি রাস্তা রয়েছে,প্রথমটি ঝাড়গ্রাম থেকে ধেঁডুয়া হয়ে সোজা লালগড়(প্রায় ৩০ কিমি)। দ্বিতীয়টি ঝাড়গ্রাম থেকে দহিজুড়ি-আমকলা হয়ে লালগড় (প্রায় ২০ কিমি)।আর যদি মেদিনীপুর থেকে লালগড় আসতে চান তবে আপনাকে ভায়া ভাদুতলা হয়ে আসতে হবে ( প্রায় ৪০ কিমি)। উভয় ক্ষেত্রেই বাস পরিষেবা চালু আছে।তবে করোনার কারনে হয়তো কিছু সময় আপনাকে বাসের জন্য অপেক্ষা করতে হতে পারে।

তাহলে আর অপেক্ষা কিসের,টুক করে ঘুরতে ঘুরতে চলে আসুন লালগড়।১০০ শতাংশ গ্রাম বাংলার পুজোর স্বাদ যদি পেতে চান তবে এবারের পুজোয় গন্তব্য হোক লালগড়।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel