জেলা

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান, খুলছে গোন্দলপাড়া জুট মিল

GNE NEWS DESK: চন্দননগরের গোন্দলপাড়া জুটমিলের বন্ধ দরজা প্রায় আড়াই বছর পর আগামী পয়লা নভেম্বর থেকে খুলে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় নিজের ফেসবুকে অ্যাকাউন্টে এক ভিডিও বার্তায় এমনটাই দাবি করেন।

সূত্রের খবর, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না-হওয়া পর্যন্ত পুরোপুরি স্বস্তি মিলবে না। বুধবার কলকাতায় ত্রিপাক্ষিক বৈঠক হয় শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটকের উপস্থিতিতে ওই জুটমিল নিয়ে। রাজ্যের অতিরিক্ত শ্রম-কমিশনার তীর্থঙ্কর সেনগুপ্ত, উপ শ্রমক মিশনার অনন্যা দত্ত চৌধুরী প্রমুখ শ্রমকর্তা ছিলেন।

মিলের মালিক সঞ্জয় কাজোরিয়া এবং ১১টি শ্রমিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। ওই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, আগামী ১ নভেম্বর থেকে মিল খুলবে। কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের পাওনা মিটিয়ে দেবেন। তাঁরা জুটমিলের নিয়ম অনুযায়ী মজুরি পাবেন। মিল খোলার ১৫ দিনের মধ্যে তাঁদের কাজে যোগ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করেন, ২০১৮ সালের ২৭ মে আর্থিক মন্দা, শ্রমিক অসন্তোষ-সহ নানা কারণ দেখিয়ে ওই জুটমিলে ‘সাসপেনশন অব ওয়ার্ক’ এর কথা। ফলে, সেখানকার প্রায় পাঁচ হাজার শ্রমিক কাজ হারান। লোকসভা ভোটের মুখে কয়েক দিনের জন্য কারখানা খোলে। ফের বন্ধ হয়ে যায়। উৎপাদন চালুর দাবিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক সংগঠন পথে নামে। কিন্তু কর্তৃপক্ষের তরফে বিশেষ হেলদোল দেখা যায়নি বলে অভিযোগ।

কয়েক মাস আগে মিল খুলতে উদ্যোগী হন কর্তৃপক্ষ। এদিকে কিছু দিন আগে মিলের নাম পরিবর্তন হয়েছে। আগে মিলটি ছিল ‘রতনলাল এক্সপোর্ট লিমিটেড’-এর অধীনে। এখন এই মিল ‘শক্তিগড় টেক্সটাইল অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ় লিমিটেড’-এর অধীন।

এদিন ফেসবুক বার্তায় লকেট চট্টোপাধ্যায় লেখেন, ‘সাংসদ হওয়ার পর দীর্ঘদিন ধরে রাজ্যের সাথে লড়াই করে কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে আলোচনা করে চন্দননগরের গোন্দলপাড়া জুট মিল খুলছে ১লা নভেম্বর। অনেক চেষ্টা করেছে টিএমসি সরকার এই জুট মিল যাতে বন্ধ থাকে। হুগলির জুটের তৈরি ব্যাগ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়বে। কেউ যদি এটাকে আটকানোর চেষ্টা করে, তাহলে কেন্দ্রীয় সরকার কড়া ব্যাবস্থা নেবে। মোদিজিকে ধন্যবাদ জানাই হুগলিবাসীর পক্ষ থেকে। আত্মনির্ভর হুগলি, আত্মনির্ভর বাংলা, আত্মনির্ভর ভারত।‘

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel