প্রথম পাতা ভোট বাংলা আজকের রাশিফল সকালের বাংলা কর্ম সন্ধান পশ্চিম বাংলা বাংলার জেলা ভারতবর্ষ বিশ্ব বাংলা খেল বাংলা প্রযুক্তি বাংলা বিনোদন বাংলা        লাইফস্টাইল বাংলা EXCLUSIVE বাংলা GNE TV
জেলা

ছিলেন মমতার বিরুদ্ধে, এখন দিদির দলে! সায়নীর তৃণমূলে যোগদানে কটাক্ষ রাজনৈতিক মহলের

GNE NEWS DESK: অভিনেতা মহলে বরাবরের ‘ঠোঁটকাটা’ হিসেবে পরিচিত। পরিচিত ছিলেন ‘বামপন্থী’ মনোভাবাপন্ন হিসেবেও। সেই অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ হুগলির সাহাগঞ্জের ডানলপ মাঠে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে যোগ দিলেন তৃণমূলে। যা বিস্মিত করেছে রাজনৈতিক মহলের একাংশকে। যদিও অনেকে বলছেন ঘটনাক্রম অনুযায়ী এটা হওয়ার ছিল। সায়নীর এই ভোলবদলে তাঁকে উদ্দেশ্য করে উড়ে আসছে কটাক্ষও।

একসময় রাজনৈতিক মহলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের বিরোধী হিসেবেই পরিচয় ছিল। অনিক ধরের রাজনৈতিক ব্যঙ্গ ধর্মী সিনেমা ‘ভবিষ্যতের ভূত’ কলকাতায় প্রেক্ষাগৃহ পায়নি। অভিযোগ উঠেছিল নেপথ্যে রাজনৈতিক কারণের। সেই সময় একাধিক অভিনেতা অভিনেত্রীর সঙ্গে প্রতিবাদে যোগ দিয়েছিলেন সায়নীও। কলকাতা চলচিত্র উৎসবে সিনেমার থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পোস্টার থাকা নিয়েও এক সময় প্রশ্ন তুলে বিরোধিতা করেছিলেন তিনি। এমনকি বিভিন্ন সময়ে নিজের সোশ্যাল সাইটের পেজে একাধিক রাজনৈতিক পোস্ট করেছিলেন স্পষ্ট বক্তা সায়নী।

কিন্তু গতি প্রকৃতি অন্যদিকে ঝোঁকে সোশ্যাল মিডিয়াকে ঘিরেই। নিজের পোস্টে রাজনৈতিক সভায় ‘জয় শ্রীরাম’ এর মত ধর্মীয় স্লোগানের বিরোধিতা করেন সায়নী। এরপর তিনি বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন তথাগত রায়ের সঙ্গে। তথাগত রায় সায়নীর একটি পুরাতন পোস্ট শেয়ার করে আক্রমণ করেন। সেই পোস্টে এক মহিলা শিবলিঙ্গে কন্ডোম পড়িয়ে দিচ্ছিলেন। সেই মহিলাকে ‘বুলাদি’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছিল। সায়নী ধর্মীয় ভাবাবেগকে আঘাত করেছেন এই অভিযোগ এনে গেরুয়া শিবিরের রোষানল আছড়ে পড়ে তাঁর উপর। তাঁর সোশ্যাল পেজ ভর্তি হয়ে যায় অশ্লীল আক্রমণ, ধর্ষণের হুমকিতে। সেই সময়ে সায়নীর পাশে দাঁড়ায় তৃণমূল নেতৃত্ব। এমনকি স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সায়নীর সমর্থনে প্রকাশ্য সভায় মুখ খোলেন। হুঁশিয়ারির সুরে তৃণমূল নেত্রী বলেছিলেন, “ক্ষমতা থাকলে সায়নীর গায়ে কেউ হাত দিয়ে দেখাক।” সেই সময় পরিবর্তিত রাজনৈতিক রসায়নের ইঙ্গিত মিলেছিল। তারপরেই এই যোগদান।

অনেকে সায়নীর সিদ্ধান্তকে রাজনৈতিক ও ব্যক্তিগত আখ্যা দিয়ে স্বাগত জানালেও। অবাকও হচ্ছেন অনেকে। আবার অনেকে করছেন কটাক্ষও। অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র সায়নীর তৃণমূলে যোগদান প্রসঙ্গে ফেসবুকে লেখেন, “তোর কাছ থেকে এটা আশা করিনি সায়নী। তুইও বিক্রি হয়ে গেলি? খেলতে নেমে গেলি? দেখে কষ্ট হচ্ছে!”
সায়নী সাহাগঞ্জের সভা থেকে বলেন, “দিদিকে ধন্যবাদ। এত কম বয়সে, কম সময়ে আমাকে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য। বাংলার মা-বোনেদের সম্মান রক্ষা করতে হবে আমাদের। বাংলায় শান্তি এবং সম্প্রীতির পরিবেশ বজায় রাখতে হবে। বাংলার মাটি ১০ কোটি বঙ্গবাসীর হৃদয়ের টুকরো এবং হৃদস্পন্দন। শুধুমাত্র ভোটের আগে তা কারও পাখির চোখ হয়ে উঠতে পারে না। নিজেদের উপর বিশ্বাস রাখতে হবে আমাদের।”

একই রকমের খবর