প্রথম পাতা ভোট বাংলা আজকের রাশিফল সকালের বাংলা কর্ম সন্ধান পশ্চিম বাংলা বাংলার জেলা ভারতবর্ষ বিশ্ব বাংলা খেল বাংলা প্রযুক্তি বাংলা বিনোদন বাংলা        লাইফস্টাইল বাংলা EXCLUSIVE বাংলা GNE TV
জেলা

বিয়ের আগে কোষ্টি বিচার নয়, সুস্থ আগামী প্রজন্মের জন্য প্রয়োজন ‘থ্যালাসেমিয়া পরিক্ষা’, বার্তা দিতে বিশেষ উদ্যোগ গোপীবল্লভপুরের শিক্ষকের

ঝাড়গ্রাম: বাড়ির ছেলে মেয়েদের বিয়ে দেওয়ার আগে জ্যোতিষ দিয়ে কোষ্টি বিচারের বদলে প্রয়োজন পাত্র পাত্রীর ‘থ্যালাসেমিয়া পরিক্ষা’ যার মাধ্যমে সুখি হতে পারে নতুন দাম্পত্য জীবন। নির্বিঘ্নে কাটতে পারে আগামী প্রজন্মের জীবন। বিয়ের মরসুমে সাধারণ মানুষকে থ্যালাসেমিয়া রোগের বিষয়ে সচেতন করতে এবং পরিক্ষার মাধ্যমে বিয়েতে এগোনোর বিষয়ে সচেতন করতে বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে গোপীবল্লভপুর ২ নম্বর ব্লকের বেলিয়াবেড়া কৃষ্ণচন্দ্র ম্যামোরিয়াল উচ্চমাধ্যমিক স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষক সুব্রত মহাপাত্র। স্কুল ছুটির পর একজন ছাত্রের সাইকেল নিয়ে এলাকার গ্রামে গ্রামে প্রচারপত্র চিটানো থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষকে থ্যালাসেমিয়া রোগের ভয়াবহতা নিয়ে সতর্ক করছেন।


সুব্রত বাবু নিজের গাঁটের টাকায় পাঁচ হাজার পোস্টার ছাপিয়েছেন, নিজের হাতেই পোস্টার চিটাচ্ছেন এলাকায়। এক হাতে আঠার ব্যাগ ও অন্য হাতে পোস্টারের ব্যাগ নিয়ে দোরে দোরে ঘুরছেন যাতে বিবাহ যোগ্য ছেলে বা মেয়ে বিয়ের পিড়িতে বসার আগে কুষ্ঠি বা ঠিকুজি বিচার নয়, থ্যালাসেমিয়া পরীক্ষা অতি- অব্যশই করায়।


সুব্রত বাবুকে প্রশ্ন করা হয় কেন তাঁর এই উদ্যোগ? উত্তরে মাস্টার মশাই জানান” তাঁর এক প্রিয় ছাত্রের পুত্র থ্যালাসেমিয়া রোগ নিয়ে জন্ম নিয়েছে, ওরা দুজনেই বাহক ছিল,সেই ছাত্রের করুন কাহিনি শুনে তিনি এই সমাজ সচেতনতার কাজে ঝাঁপিয়ে পড়েন,যাতে তাঁর কোন ছাত্র বা ছাত্রীর বা অন্য কারোর জীবনে এই অন্ধকার না নেমে আসে।”


সুব্রত বাবু তাঁর স্কুলে প্রতি বছর এই “থ্যালাসেমিয়া বাহক নির্ণয় শিবির “করেন কিন্তু লক ডাউন এর জেরে স্কুল বন্ধ থাকায় গত বছর এই শিবির করতে পারেন নি, আর এখন স্কুল খুললেও সব ক্লাস খুলে নি, তাই তিনি স্কুল ছুটির পর মানুষ জন কে বোঝাবার জন্য পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে সচেতন করার কাজ টা করে চলেছেন।
সুব্রত বাবুর কথায় -” এর জন্য হয়তো আমাকে অর্থ ও শ্রম দিতে হচ্ছে ঠিকই তার মধ্যে যদি সচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারি তবে আসবে সফলতা।
এর আগেও সুব্রত বাবু নিজের টাকায় ” মদ/চোলাই মদের বিরুদ্ধে” একই ভাবে পোস্টার ছাপিয়ে আদিবাসী গ্রাম গুলোতে স্কুল ছুটির পর লাগাতার সচেতনতা মূলক প্রচার চালিয়ে গেছেন।


কইমা, ভাদুয়া, মুচিনালা, শাকরারী, ভান্ডারডিহা, নারানপুর, মহাপাল, তপশিয়া প্রভৃতি গ্রামে গেলে দেখা যাবে মাস্টার মশাই এর পোস্টার।
গোপীবল্লভপুর ২ নম্বর ব্লকে এর সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক শ্রী অর্ঘ্য ঘোষ বলেন – সুব্রত বাবুর এই উদ্যোগ অকল্পনীয়। সমাজের মানুষজন যাতে ভালো থাকেন তাঁর এই প্রচেষ্টা কে আমরা কুর্নিশ জানাই।”
বেলিয়াবেড়া থানার ওসি সাহেব শ্রী সুদীপ পালোধী বাবু বলেন – মাস্টার মশাই এর এই প্রচেষ্টা কে স্যালুট জানাই। উনি কোন সহযোগিতা চাইলেন আমরা দিতে প্রস্তুত।”


বেলিয়াবেড়া চক্রের এস.আই. শ্রী তমাল দাস জানান – ” সুব্রত বাবু স্কুলে পড়ানোর পাশাপাশি যেভাবে সমাজের কথা ভাবেন, খুব কম জনই তা ভাবেন বা করেন। উনার কাজই উনাকে আর পাঁচ জনের থেকে আলাদা করেছে। উনার এই ধরনের কাজ কে সন্মান জানাতেই হয়।”
সুব্রত বাবু এক ছাত্র সুখেন্দু খিলাড়ি র কথায় – সুব্রত স্যার একজন আদর্শ শিক্ষক, আমরা উনার ছাত্র হিসেবে গর্ব অনুভব করি”।
ভুষিমাল ব্যবসাই ধরণিধর করণের কথায় – সুব্রত বাবু আমাদের জেলার গর্ব।
কিন্তু মাষ্টার মশাই এর কোন বিকার নেই। শুধু বলেন_ “কর্মই ধর্ম। ভালো কিছু করতে পারলে নিজেকে ভালো লাগে, সেই ভালোলাগা থেকে এই কাজ।”

একই রকমের খবর