প্রথম পাতা ভোট বাংলা আজকের রাশিফল সকালের বাংলা কর্ম সন্ধান পশ্চিম বাংলা বাংলার জেলা ভারতবর্ষ বিশ্ব বাংলা খেল বাংলা প্রযুক্তি বাংলা বিনোদন বাংলা        লাইফস্টাইল বাংলা EXCLUSIVE বাংলা GNE TV
জেলা

ভোটে নয় ঝড়ে আসেন কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়, রায়দিঘিতে এবারেও বামেদের প্রার্থী তিনি

GNE NEWS DESK: বিগত দুটি বিধানসভা নির্বাচন ২০১১ ও ২০১৬ তে রায়দিঘিতে হেরেছেন প্রাক্তন বিধায়ক ও প্রাক্তন সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়। ভোটে হেরেছেন কিন্তু এলাকা ছেড়ে যাননি, বরং কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়ের দেখা মেলে সুন্দরবন অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় এলে।

আয়লা,বুলবুল, ফনী, আম্ফান বা অন্য কোন ঘূর্ণিঝড় এলেই কান্তি আসেন সবার আগে। বর্ষিয়ান এই বাম নেতার লড়াইটা যেন ভোটের ময়দানে নয়, ঘূর্ণিঝড়ের সঙ্গে। বাম জমানার দীর্ঘ সময়ের মন্ত্রী কান্তি গাঙ্গুলীর পক্ষে ঝড় মোকাবিলা করা অভ্যাসে পরিনত হয়েছে। এগিয়ে বিপর্যস্ত ও বিধ্বস্ত জনজীবনকে রক্ষা করতে। এমনকি নেতার প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী তৃণমূল নেতা কর্মীরাও একবাক্যে তা স্বীকার করেন। কিছুদিন আগেই আমফানের সময় নিজের প্রশাসনিক অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে কান্তি গাঙ্গুলি বুঝেছিলেন জনজীবনে কি প্রভাব পড়তে চলেছে। তাই সরাসরি চিঠি লিখেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। চেয়েছিলেন নির্দিষ্ট কিছু সাহায্য। সেই চিঠির উত্তর পান নি, তবুও থেমে থাকেননি তিনি। নিজের সীমিত সামর্থ্যকে পুঁজি করেই জনজীবন বাঁচানোর কাজে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন সুন্দরবনের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। নিজস্ব রীতিতে চাল মজুত, সমুদ্র তীরবর্তী এলাকা থেকে গ্রামবাসীদের সরানো তো ছিলই, ঝড় পরবর্তী সময়ে বিধ্বস্ত জনজীবনকে স্বাভাবিক করতে নিজেই হাত লাগিয়েছিলেন উদ্ধারকার্যে।

আম্পানে ত্রাণ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। দুর্নীতির অভিযোগে এবং ত্রাণের সুষম বন্টনের দাবি নিয়ে বিক্ষোভেও এগিয়ে এসেছিলেন কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়। তাৎপর্যপূর্ণভাবে রায়দিঘির বিধায়ক অভিনেত্রী দেবশ্রী রায়কে সেই সময়ে পাওয়া যায়নি। গত দুই বার পরাজিত হলেও তাই এবারেও কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়ই রায়দিঘি থেকে সিপিআইএমের জোট প্রার্থী।

একই রকমের খবর