প্রথম পাতা করোনা আপডেট আজকের রাশিফল সকালের বাংলা কর্ম সন্ধান পশ্চিম বাংলা বাংলার জেলা ভারতবর্ষ বিশ্ব বাংলা খেল বাংলা প্রযুক্তি বাংলা বিনোদন বাংলা লাইফস্টাইল বাংলা EXCLUSIVE বাংলা GNE TV
জেলাভোটযুদ্ধ

“লড়াই ছিল অধিকারী পরিবারের বিরুদ্ধে, লড়াই চলবে”, মন্ত্রী হয়ে বিস্ফোরক অখিল গিরি

GNE NEWS DESK: সদ্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভায় স্বাধীন মন্ত্রী হিসেবে দ্বায়িত্ব পাওয়া রামনগরের বিধায়ক অখিল গিরি। চার বারের বিধায়ক তিনি। রামনগর থেকে অখিল প্রথম বার তৃণমূলের টিকিটে জিতেছিলেন ২০০১ সালে। এর পর ২০০৬ সালে সিপিএমের স্বদেশরঞ্জন দাসের কাছে হেরে যান তিনি। কিন্তু একই কেন্দ্রে ২০১১ সালে তাঁর প্রত্যাবর্তন ঘটে। তারপর ২০১৬, ২০২১ সালে রামনগর থেকে নির্বাচিত বিধায়ক তিনি। কিন্তু দীর্ঘদিন পূর্ব মেদিনীপুরের রাজনীতিতে ছিলেন ব্রাত্য। কারণ হিসেবে বলা হয় জেলায় অধিকারী পরিবারের একাধিপত্য। রাজ্য রাজনীতিতে অধিকারী পরিবারের বিরোধী হিসেবেই পরিচিত তিনি। এরপর হুগলি নদী দিয়ে অনেক জল প্রবাহিত হয়েছে। তৃণমূল ছেড়ে দ্বিব্যেন্দু ছাড়া সকল অধিকারীরা এখন বিজেপিতে। তারপরেই জেলার রাজনীতিতে উত্থান ঘটে অখিলের। ভোটে তাঁর মূলত লড়াই ছিল শুভেন্দুর বিরুদ্ধেই। ফলে প্রথমবার মন্ত্রিসভায় স্থান পেয়েই বিস্ফোরণ ঘটালেন তিনি।

শুভেন্দু-শিশিররা রাজনৈতিক পালাবদলের পরেই পূর্ব মেদিনীপুরে দলের গড় ধরে রাখার জন্য সৌমেন মহাপাত্রের পাশাপাশি অখিল গিরিকেও দায়িত্ব দিয়েছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নেত্রীর সেই বিশ্বাসের মর্যাদা রেখেছেন দুই নেতাই। রাজনৈতিক মহলের বক্তব্য অখিলের মন্ত্রিত্ব মূলতঃ অধিকারীদের সাম্রাজ্যে ধস নামানোর পুরস্কার। সেই প্রসঙ্গে রামনগরের বিধায়ক বলেন, “অনেকদিন ধরেই সংগ্রাম চালাচ্ছি। সেই সংগ্রামের পুরস্কার পেলাম। নতুন দায়িত্ব পেয়ে ভালই লাগছে।” ভোটের লড়াই প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, “অন্যান্য বারের তুলনায় এবারে লড়াইটা ভিন্ন ছিল। এ বার অন্য রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যেমন লড়াই ছিল, তেমনই অধিকারীদের বিরুদ্ধেও আমার লড়াই ছিল। ওরা যে ভাবে দলকে চালাচ্ছিল, তার বিরুদ্ধে বরাবর প্রতিবাদ জানিয়ে এসেছি। অধিকারীরা চলে যাওয়ার পরেও, আমরা জায়গাটা অনেকটা ধরে রাখতে পেরেছি এটাই বড় সাফল্য।” নিজের ও দলের জেলা রাজনীতিতে পরবর্তী লক্ষ্যও স্থির করে দিলেন অখিল। তিনি বলেন, “কাঁথি লোকসভা কেন্দ্রের বেশি আসনে আমরা পিছিয়ে রয়েছি। আমার প্রথম লড়াই হবে, যে আসনগুলি আমরা হারিয়েছি সেই জায়গাগুলিতে পুনরায় ফিরে আসা।” সেই সঙ্গে শুভেন্দুদের প্রতি তাঁর হুঙ্কার, “অধিকারী পরিবারের গড় কাঁথি লোকসভা আসন ফিরিয়ে আনতে লড়াই চালাব। দলের সঙ্গে যাঁরা ‘গদ্দারি’ করেছে, তাঁদের উপযুক্ত জবাব দেওয়াই প্রথম কাজ হবে।”

GNE

Related Articles

x