মহা ধুমধামে পালিত হল ঐতিহ্যবাহী করম পরব

Traditional Karam Parab is celebrated with great pomp

GNE NEWS DESK: আজ করম পরব। মহা ধুমধামের সহিত সমগ্র ছোটোনাগপুর জুড়ে পালিত হল ‘করম পরব।’ এই পরব মূলত কৃষি ভিত্তিক পরব। ভারতবর্ষের আদিম অধিবাসীরাই মূলত ‘করম পরবে’ মেতে ওঠে।করম পরব অনুষ্ঠিত হয় ভাদ্র মাসের শুক্লা একাদশীতে।

কৃষি সভ্যতার সূচনা কিভাবে করেছিলেন, সেই মুহুর্ত নবীন প্রজন্মের কাছে সুন্দর ভাবে তুলে ধরে করম পরবের মাধ্যমে। করম পরবের যে নেগ নীতি রয়েছে, তার থেকে অনুমান করা যায় যে কৃষি কাজের সূচনা হয়েছিল মহিলাদের মাধ্যমেই।

তাই কৃষিকার্যে পারদর্শী মহিলারাই কুমারী মেয়েদের জাওয়ার পরিচর্যার প্রশিক্ষণ দেয়। যাতে কুমারী মেয়েরা বিয়ের আগেই কৃষিকার্যে নিপুণ হয়ে ওঠে, তারেই প্রশিক্ষণ হয় জাওয়া পরিচর্যার মাধ্যমে। এছাড়াও করম পরবের মাধ্যমে আদিবাসী সম্প্রদায়ের কিশোর কিশোরীদের সমাজের রীতিনীতি, সংষ্কৃতি প্রভৃতির প্রশিক্ষণ দেন।

“দেহু দেহু করম রাজা দেহু আশীষ রে
ভাই মঅর বাড়ে লাখো বরস রে”
এই ধরনের গানে গানেই মেতে ওঠে আদিবাসী কিশোর কিশোরীরা।

ভারতবর্ষের বাংলা, বিহার, ঝাড়খন্ড, ওড়িশা এবং আসামের আদিবাসীরা মেতে ওঠে করম পরবে। বাংলার জঙ্গলমহলের চার জেলা সহ দুই দিনাজপুরে মহা ধুমধামের সহিত পালিত হয় করম পরব(Kram Parab)।

এছাড়াও করম পরবের ছুটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে জঙ্গলমহলে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে আদিম জনজাতি কুড়মি সমাজের মধ্যে। তাদের দীর্ঘদিনের দাবি করম পরবে সাধারণ ছুটি দিতে হবে। কিন্তু রাজ্য সরকার কর্তৃক করম পরবে সেকসেনাল ছুটি ঘোষণা করে। এই নিয়ে কুড়মি সেনার পক্ষ থেকে রবীন্দ্রনাথ মাহাত বলেন “তাই আগামীদিনে এই চির ঐতিহ্যবাহী করম পরবকে সাধারণ ছুটির মর্যাদা দিলে এটি আরোও অনেক অনেক বেশি পূর্ণতা পাবে। অতএব সরকারের এই বিষয়টির উপর অধিক গুরুত্বের সহিত সযাগ দৃষ্টি দেওয়া উচিত।” তারেই প্রতিবাদে আদিবাসী কুড়মী সমাজ নামক কুড়মিদের সামাজিক সংগঠন “ডহরে করম” পালিত করে। ডহর কথার অর্থ হলো রাস্তা। সরকার সাধারণ ছুটি ঘোষণা না করাই জঙ্গলমহলের প্রায় সর্বত্রয় “ডহরে করম” পালিত হল। এই নিয়ে আদিবাসী কুড়মী সমাজের রাজ্য সভাপতি মনোরঞ্জন মাহাত বলেন “আমাদের দাবি ছিল করমে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করতে হবে। কিন্তু সরকার আমাদের সাথে দ্বিচারিতা করেছে।”

[qws]Tags: Karam Parab

Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel