বিশেষ সংখ্যা

দশ মাস, দো সমাস!

সুকুমার মাহাত:লক ডাউনের সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের আড্ডা, সামাজিক দূরত্ব মেনেই! যথারীতি আলোচ্য শাসকদলের দলের রদ-বদল! মফস্বলের কয়েক জন সাংবাদিক! তারা না দিকগজ , না বিরাট জন সংযোগ ! খবর সূত্রেই যেটুকু যোগাযোগ !তাও আবার করোনা মহামারীতে যোগের চেয়ে অ- যোগ বেশি। একজন বলে – সবই বুঝলাম সাতজনের কোর কমিটি কেন? সাত সমুদ্র পারের ইঙ্গিত ?না সাত ভাই চম্পা …কে জানে তাহলে আবার ভাই মাঝে ভাইপো কেন?রাজ্যে পরিবর্তন অথবা পরিবর্তন পরবর্তীকালে সাত জনের কার ভূমিকা কি ?

কে কতটা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেছে? ..জনসংযোগহীন দুই- একজন তো ছায়া সঙ্গী কেন লকডাউনে নীল ডাউনেও রাজি ! এটা অবশ্য তাদের আনুগত্যের প্রমাণ না, আসলে এটাই তাদের ইউএসপি! অন্যজন বলে , আরে অধীরদা তো অনেক আগেই বলেছে, যতই তুমি দল ভাঙ্গাও ভাইপোকেই মাথায় তুলবে , মেদিনীপুরের মাস্তান তোমার কিছু হবে না! অবিভক্ত মেদিনীপুরে জন্ম! তাই টুম্পা বদনাম! সেসবের তোয়াক্কা না করেই বললাম, হ্যাঁ বিধানসভা ভোট তো দশমাস বাকি…দশমাসে গর্ভস্থ ভ্রুণ ও পরিনত হয়ে ভূমিষ্ঠ হয়! শাসকদলের কী হবে কে জানে!

ডাক্তার পি কের ট্রিটমেন্ট…এমনিতেই গোটা দুয়েক মিসক্যারেজের রেকর্ড আছে! রং ট্রিটমেন্ট বা মিসম্যানেজমেন্টে আম জনতার বিধানে দেখা যাক এসকিলেটরি উত্তরসূরীর অভিষেক হয় কী না! আম জনতা তো কোনো লড়াইয়ে যুবরাজকে দেখেই নি! একটি দ্বিচক্রযান এগোতেও দুটো চাকার সঙ্গত লাগে… এগিয়ে যাওয়া এক চাকায় ভর দিয়ে হয় না! জনতার বিধান জয়ী রথের একটা মমতার চাকা হলে অন্যটা অবশ্যই শুভ শক্তির! জোর করে একসারিতে হাজির বাকি ছয়ের অবদান তুল্যে মূল্যে কতটা জনতা জনার্দন জানে!দেখেছে বাঘে- গরুতে একঘাটে জল খাওয়ানো লক্ষ্মণকে শক্তিশেল মারা কিংবা দীপক দাপট উপড়ানো, দুপুরে সূর্য ডোবানোর শক্তির অধিকারী কে আছে! কে পেরেছে বলে বলে ঘোষকে ঘোল খাওয়াতে?কে পারে মাও জুজুকে ফুৎকারে উড়িয়ে সন্তানহারা ‘মা’য়েদের মুখে হাসি ফুটিয়ে জঙ্গলের কাঁকুরে ‘মাটি’তে ফুল ফুটিয়ে ‘মানুষে’র আশা জাগাতে!

ননীর পুতুল যুবরাজ আবার সেই জঙ্গলমহলকে জয়নগরের ‘মোয়া’ ভেবে হাতে নেওয়ার কিছুদিন পরেই দেখে মোয়া ‘হাওয়া’! আর যে যাই বলো ভাই.. ক্ষমতায় আসার পরে সেকেন্ড ম্যান ইন কম্যান্ড থেকে সুরের ইন্দ্রধনুর.. পর্যবেক্ষণ নবাব তল্লাটে কিছুই কাজে আসে নি!একজনের সাম্রাজ্য শেষ করেছে সেই একমেদ্বিতীয়ম শুভ শক্তি!জেলায় রাশ হারানো অধীশ্বরের লঘুচালের যুক্তি পুলিশ দল ভেঙেছে ভেবে কেউ তৃপ্তির চোঁয়া ঢেঁকুর তুললে প্রশ্ন উঠবে যুবরাজের বা সারথী পার্থের কি পুলিশ কিছু কম পড়েছিল? ওখানে তো যৌথবাহিনী দোসর! জঙ্গলমহলের সাজানো বাগান কেন ধুলোয় মিশল?রাজ নীতি বড় কঠিন ঠাঁই, আপন ছাড়া ভাবনা নাই!

নিজে গড়া সংগঠন আর পালিত ছাগলে মিল আছে! মালিক লেজ বা ধড়ে কাটলে কারও কিছু বলার থাকে না। কিন্তু রাজ্যপাটের সভা গড়ার বিধান দেওয়ায় আমজনতা সতর্ক! লড়াইয়ে মমতা দেখলেও শুভ শক্তির অভাবে অভিষেকের স্বপ্ন অধরায় থেকে যাবে, পদের যোগ্য অধিকারীকেই বসাবে!!

Tags
Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel
Close