খেলা

ISL 2020: আর মাত্র কয়েক ঘন্টার পর ডার্বি

GNE NEWS DESK: আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা তারপরেই মহারণ। আই এস এল এর ইতিহাসে প্রথমবার কলকাতা ডার্বি। এই বছর আই এস এল এর সেরা চমক। মোহনবাগান আর ইস্টবেঙ্গলের অন্তর্ভুক্তি। মোহনবাগান আর এটিকে মার্জ হয়ে তৈরি হয় এটিকে মোহনবাগান। আর ইস্টবেঙ্গল নতুন বিনিয়োগকারী শ্রী সিমেন্টের সাথে গাঁটছড়া বেঁধে নতুনরূপে এস সি ইস্টবেঙ্গল নামে আই এস এল খেলবে।
আই এস এল ২০২০-২১: এই আই এস এলে এটিকে মোহনবাগান কেরালা ব্লাস্টার্সের সাথে তাদের প্রথম ম্যাচ জিতে শুরু করেছে। তারকা স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণা গোল পেয়েছেন। কিন্তু এস সি ইস্টবেঙ্গলের এটাই প্রথম ম্যাচ। আর প্রথম ম্যাচই ডার্বি। এটিকে মোহনবাগান গতবারের এটিকে দলকেই প্রায় ধরে রেখেছে। কিন্তু এস সি ইস্টবেঙ্গল একবারে নতুন দল তৈরি করেছে। তাই এদিক থেকে একটু বেশি এডভেন্টেজ নিয়ে শুরু করবে এটিকে মোহনবাগান। যদিও ডার্বি সব সময়ই অন্য রকম।

কোচের লড়াই :

এটিকে মোহনবাগান তাদের গত বারের এটিকের কোচ অন্থনিও হাবাস কে এবারেও দায়িত্ব দিয়েছেন। হাবাসের আই এস এল এর রেকর্ড খুবই ভালো। দুবার চ্যাম্পিয়ন করেছেন এটিকে কে। তাছাড়া টিমের সবাই প্রায় গতবার তার অধীনে খেলেছে। তাই তিনি তার টিমের সকলকেই হাতের তালুর মতো চেনেন।
অপরদিকে ইস্টবেঙ্গলের কোচ লিভারপুল লেজেন্ড রবি ফাউলার। ইংল্যান্ডের রবি ফাউলার বিশ্ব ফুটবলে জগতে খুবই পরিচিত মুখ। ফুটবল জীবনে জীবনে তিনি খুব সফল যদিও কোচিং জীবনে তিনি সবে নতুন অধ্যায় শুরু করেছেন। গতবছর তিনি অস্ট্রেলিয়ার এ লীগের ব্রিসবেন রোরর্স এর কোচ ছিলেন। ফুটবল জীবনের মতো কোচিং জীবনেও তিনি সফল হতে পারেন কিনা সেটাই দেখার।

তফাৎ গড়বে বিদেশীরা:
দুদলই বেশ ভালো মানের বিদেশীদের সই করিয়েছে। বেশিরভাগই এ লীগ থেকে আসা।
এটিকে মোহনবাগানের টিরি, জাভি, ডেভিড উইলিয়ামস, রয় কৃষ্ণা রা আগেও নিজেদের সেরা প্রমাণ করেছেন আই এস এল-এ। এ লিগে ভালো ফর্মে থাকা ব্রাড ঈমান কেও তারা এবছর সই করিয়েছি। এটিকে মোহনবাগানের বিদেশীরা সব সময়ই বিপক্ষ দলের কোচের চিন্তা বাড়াবে।
এস সি ইস্টবেঙ্গলের ডিফেন্সে স্কট নেভিল ও ড্যানিয়েল ফক্স রয়েছে। স্কট নেভিল গতবার ব্রিসবেন রোরর্স এর হয়ে ভালো ফর্মেই ছিলেন। সাথে স্কটল্যান্ডের ড্যানি ফক্স এবার এস সি ইস্টবেঙ্গলের ক্যাপ্টেন।
মিডফিল্ড এর অন্থনি পিলকিংটন, মার্টি স্টেইনমান, জেকবস ম্যাগোমা, এরন হ্যালওয়ে রা যথেষ্ট নামী ফুটবলার। কিন্তু ভারতের মাটিতে কতটা সফল হতে পারে তা দেখার।
তরুণ ভারতীয় ব্রিগেড:
সি কে ভিনিথ, জেজে, বলবন্ত সিং, মহম্মদ রফিক, বিকাশ জাইরু, সেহনাজ সিং-রা এবছর এস সি ইস্টবেঙ্গলের ভারতীয় ব্রিগেডকে যথেষ্ট শক্তিশালী করেছে। তবে এটিকে মোহনবাগান এবছর রেকর্ড অংকের টাকা দিয়ে ভারতের অন্যতম সেরা ডিফেন্ডার সন্দেশ ঝিনগণ -কে সই করিয়েছে। তাছাড়া এটিকে মোহনবাগানের অরিন্দম ভট্টাচার্য, প্রীতম কোটাল, প্রবীর দাস, প্রণয় হালদার, সুমিত রাঠিরা দলের অন্যতম সম্পদ।
ঐতিহ্যের লড়াই:
কলকাতা ডার্বি অথাৎ আমাদের বড়ো ম্যাচ প্রায় এক শতক হতে চললো। প্রথমবারের ১৯২১ সালে ৮ই আগস্ট কোচবিহার কাপে প্রথমবার মুখোমুখি হয় ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগান। খেলার ফল ছিলো ০-০ । সেই থেকে শুরু । তারপর থেকে ডার্বি জুড়ে রয়েছে বাঙালির আবেগ ও ক্লাবের প্রতি ভালোবাসা। ডার্বি দিন যেনো গোটা বাংলার সমর্থকরা দুই ভাগে ভাগ হয়ে যায়। মত ৩৫৩ বার(প্রতিযোগিতা মূলক ম্যাচ) এই দুই দল মুখোমুখি হয়েছে যার মধ্যে ইস্টবেঙ্গল জিতেছে ১২৭ বার, মোহনবাগান ১১১ বার, ১১৫ বার ড্র। শেষ সাক্ষাৎ হয়েছিল গতবার আই লিগে। যেখানে মোহনবাগান ২-১ গোলে জিতেছিল। ডার্বিতে সব চেয়ে বেশি গোল রয়েছে বাইচুং ভুটিয়ার(২৩)। ১৯৭০ সালে আই এফ এ শিল্ডের ম্যাচে এখনো পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি গোলে ইস্টবেঙ্গল জিতেছে (৫-০)। ১৯৯৭ সালের ফেডারেশন কাপের সেমি ফাইনালের ম্যাচে রেকর্ড সংখ্যক এক লাখ একত্রিশ হাজার দর্শক হয়েছিল সল্টলেক স্টেডিয়ামে ডার্বিতে।
এবার আই এল এল এ নতুন রূপে কলকাতা ডার্বি। দুই দলের ফুটবলাররা মুখিয়ে রয়েছে ডার্বি খেলার জন্য। এক ঝাঁক বাঙালি মুখ দুই দলেই। দুই দলের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা চরমে। নিঃসন্দেহে ভারতীয় ফুটবলের ইতিহাসে আজ এক ঐতিহাসিক দিন। আজ খেলা হবে। জয় ফুটবল। জয় হিন্দ।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel