রাজ্যজেলা

করোনা পরিস্থিতিতে দুমুঠো খাবার জোটানোর চিন্তায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা এখন মাস্ক ও সব্জি বিক্রেতা

মেদিনীপুর: দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন আর এই লকডাউনে বন্ধ বেশিরভাগ ব্যবসা বাণিজ্য। দিন আনা দিন খাওয়া মানুষজনদের কপালে চিন্তার ভাঁজ। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় ব্যাপক সংখ্যার মানুষরা এই পরস্থিতির শিকার হয়েছে। যে সমস্ত ব্যবসা নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের আওতায় শুধুমাত্র সেগুলি খোলা রয়েছে, কিন্তু বন্ধ রয়েছে অনান্য ব্যবসা গুলো। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার এক ব্যাপক সংখ্যা মানুষের আজ চিন্তা দুবেলা দুমুঠো খাবার জোটানোর।

চা ব্যবসায়ী যারা ছিলেন তারা এখন ডিম ও সব্জি বিক্রি করছেন। চা দোকান বন্ধ রেখে সব্জি বিক্রি করতে মেদিনীপুর শহরে দেখা গেলো চা এক ব্যবসায়ীকে। আবার কোনো চা ব্যবসায়ি চা বিক্রি না করে পেটের তাগিদে মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিক্রি করছেন। কোনো কোনো এমন ব্যবসায়ীকে পাওয়া গেলো যারা মাস ফুরোলে মোটা অঙ্কের টাকা আয় করে থাকেন। কিন্তু বর্তমানে লকডাউন পরিস্থিতির কবলে পড়ে তারাও মাস্ক বিক্রি করে পয়সা উপার্জন করছেন।

এই ভাবে যদি লকডাউন চলতে থাকে ও লকডাউনের দিন সংখ্যা বাড়তে থাকে তাহলে সমাজের মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষদের মধ্যে যথেষ্ট দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াবে বলে মনে করছেন তাঁরা। শুধুমাত্র রেশনের চাল, আটা দিলেই তো সংসার চলে না। বিভিন্ন রকমের ওষুধপত্র রয়েছে। রয়েছে মশলাপাতির খরচ। কিন্তু অর্থ উপার্জনের রাস্তা সম্পূর্ণ ভাবে বন্ধই রয়েছে বেশ কয়েকদিন ধরেই। কবে লকডাউন উঠবে এবং ফের পুণরায় ব্যবসা চালু হবে সেদিকে তাকিয়ে রয়েছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

Tags
Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Close