রাজ্যরাজনীতি

পুনরায় সরকারি মঞ্চে শুভেন্দু অধিকারী , রাজ্য রাজনীতিতে নতুন করে শুরু হল জল্পনা

GNE NEWS DESK: সাম্প্রতিক রাজ্য রাজনীতি বিগত বেশ কিছুদিন ধরেই ‘শুভেন্দু অধিকারী’র উপর কেন্দ্রীভূত। তাঁর বিভিন্ন সাম্প্রতিক মন্তব্য দল বদলের রাজনৈতিক আবহে জল্পনা জুগিয়েছে। গত কয়েক মাস আগে পশ্চিম মেদিনীপুরের একটি সরকারি অনুষ্ঠানের মঞ্চে অনুপস্থিত থাকতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে কারণ সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায় যা রাজনৈতিক ভাবে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করেছিল রাজ্যের রাজনৈতিক মহল। গত কয়েক মাস ধরে দল থেকে ডানা ছাঁটার পর তাঁকে দেখা যায়নি কোনও সরকারি মঞ্চে বা অংশ নেননি তৃণমূল- কংগ্রেসের কোনও অনুষ্ঠানেও।

সম্প্রতি বিজয়া সম্মিলনী করে তৃণমূলের বিরুদ্ধে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রবিবার পরিবহণমন্ত্রী হিসেবে নন্দীগ্রামে সরকারি ম়ঞ্চে দাঁড়ালেন শুভেন্দু অধিকারী। হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের মাধ্যমে রূপায়িত পথবাতি প্রকল্পের উদ্বোধনের ওই কর্মসূচিতে কোনও রাজনৈতিক মন্তব্যই করেননি শুভেন্দু। যেখানে মন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান বিধায়িকা ফিরোজা বিবি, উন্নয়ন পর্ষদের প্রশাসক পি হরিশঙ্কর প্রমুখ।

নন্দীগ্রামে এ দিন শুভেন্দুর মিনিট পনেরোর বক্তব্যের আগাগোড়া জুড়েই ছিল জমি আন্দোলনের সময় থেকে নন্দীগ্রামের প্রতি তাঁর আবেগ ও দায়বদ্ধতার কথা। তিনি মনে করিয়েছেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রেখে সব ধর্মীয় অনুষ্ঠানে তিনি নন্দীগ্রামে হাজির থাকেন। শুভেন্দুর কথায়, ‘‘প্রতি সপ্তাহে প্রতিদিন নন্দীগ্রামে উপস্থিত হতে পারি না। কিন্তু দায়িত্ব পালন করেছি।

নন্দীগ্রামের মানুষের পাশে থেকেছি।’’ 
শুভেন্দু অধিকারী মঞ্চ থেকে আরও বলেন, “২০১১ সালে রাজ্যে নতুন সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদ নন্দীগ্রামের ১৭ টি অঞ্চল জুড়ে ধারবাহিকভাবে যে বহুমুখী উন্নয়নমূলক কাজ করছে, সেই কাজে সংযোজিত হল এই পথবাতি। মাসে মাসে এই পথবাতির জন্য প্রয়োজনীয় বিলের টাকা হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদ দেবে।”
এছাড়াও উল্লেখ করেন, তিনি সাংসদ হওয়ার পর থেকে নন্দীগ্রামের উন্নয়ন অব্যাহত। মঞ্চের পিছনে ব্যানারে উজ্জ্বল ছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় প্রকল্প রূপায়ণের কথা। মঞ্চে উপস্থিত সরকারি আধিকারিকদের শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন শুভেন্দু।

তবে শুভেন্দুকে নিয়ে গুঞ্জন তাতে আদৌ স্তিমিত হয়নি। তাঁর পরবর্তী পদক্ষেপের দিকে তাকিয়ে রয়েছেন রাজ্য তথা মেদিনীপুরের মানুষজন।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel