রাজ্যরাজনীতি

বিজেপি-সিপিএমের গোপন আঞ্চলিক আঁতাতের দাবি কার্যত স্বীকার অমিত শাহর, কটাক্ষ তৃনমূলের

GNE NEWS DESK: গত লোকসভা ভোটে বাংলায় বিজেপির আশাতীত সাফল্যের খতিয়ান বিশ্লেষণ করে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক ও বিশ্লেষকরা দাবি করেছিলেন যে, বিজেপির প্রাপ্ত সিংহভাগ ভোট এসেছে সিপিআই(এম) থেকে। যা সিপিএম নেতারা বারবার তীব্রভাবে অস্বীকার করে এসেছেন। বিজেপি নেতৃত্ব প্রকাশ্যে স্বীকার না করলেও আকারে ইঙ্গিতে এই তত্ত্বকে মান্যতা দিয়েছেন। কিন্তু এবার বিজেপির দিক থেকে অমিত শাহর স্বীকারোক্তি এই দাবিতে কার্যত সিলমোহর দিয়ে দিল।

২০১৯ সালে পশ্চিমবঙ্গের লোকসভা ভোটে বিপুল সাফল্য পেয়েছিল বিজেপি। তাদের আসন সংখ্যা ২ টি থেকে বেড়ে হয় ১৮ টি।
২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রাপ্ত ভোট ছিল ১০%।
তা ২০১৯ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ৪১% তে।
এরপরই প্রশ্ন উঠেছে, বামেদের ভোট বিজেপিতে যাওয়াতেই কি গেরুয়া শিবিরের এই অসাধারণ সাফল্য।

বিজেপি সূত্রে দাবি, এই প্রেক্ষাপটেই বৃহস্পতিবার বাঁকুড়ার দলীয় অনুষ্ঠানে অমিত শাহ বলেন, গত লোকসভা ভোটে সিপিএম এর অনেকে বিজেপিতে যোগ না দিয়েও আমাদের সাহায্য করেন। এবারে তাঁদের দলে টানার চেষ্টা করতে হবে।

সেই প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতা ও পঞ্চায়েত মন্ত্ৰী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের কটাক্ষ, “সিপিএমের ভোটেই ওরা ১৮ টা সাংসদ হয়েছিল। এটা যে ওঁদের নিজেদের ভোট নয় সিপিএমের ভোট এই বোধটা যদি হয় তাহলে বুঝব মতুয়াদের বাড়ি, গরীবদের বাড়িতে খাওয়াটা সার্থক হয়েছে।”

তৃণমূল ও বিজেপিকে একযোগে আক্রমন করেছে সিপিএম। সুজন চক্রবর্তী বলেন, “সিপিআই(এম) আদর্শবাদী মনোভাবে চলে। এই কথার মাধ্যমে উনি আসলে স্বীকার করলেন যে সবাইকে দল ভাঙানোর চেষ্টায় আসলে ওনারা থাকেন। কিন্তু সিপিআই(এম) ক্ষেত্রে পেরে উঠলেন না।”

সূত্রের দাবি, বিজেপির সাংগঠনিক বৈঠকে অমিত শাহ বলেন, অন্য দলের পঞ্চায়েত সদস্যদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতে হবে। অন্য দলের বিধায়ক, সাংসদ, কাউন্সিলর দের দুর্নীতি ফাঁস করতে হবে। কেন্দ্র কি সুযোগ সুবিধা দিচ্ছে আর রাজ্য কি দিচ্ছে না তা সাধারণ মানুষকে জানাতে হবে।

অমিত শাহ যখন বিভিন্ন কর্মসূচি করে তৃণমূল সরকারকে উৎখাতের ডাক দিচ্ছেন তখন করোনা আবহে সেই কর্মসূচি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর অভিযোগ, “কয়েকটি রাজনৈতিক দল ইচ্ছাকৃত ভাবে মহামারী আইন মানছেন না।”

অমিত শাহের রাজ্য সফরকে কেন্দ্র করে কটাক্ষ পাল্টা কটাক্ষ মিলিয়ে রাজ্যের রাজনৈতিক আবহ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel