রাজ্য

গ্রাহকের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফাঁকা করতে গিয়ে গ্রেফতার নিউটাউনের তিন জালিয়াত

GNE NEWS DESK:সাম্প্রতিককালে এটিএম কার্ড জালিয়াতি আশংকাজনকভাবে বেড়ে গেছে। জালিয়াত রা “আমি অমুক ব্যাংকের ম্যানেজার বলছি, আপনার অ্যাকাউন্টের ভ্যালিডিটি শেষ হয়ে গিয়েছে। অবিলম্বে আপডেট করাতে হবে।” ঠিক এমনটাই বলে ফোন করে আর তারপর ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত যাবতীয় ডিটেলস সমেত ওটিপি হাতিয়ে নিয়ে নিমেষে সব টাকা ফাঁকা করে দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

আর এই ঘটনা প্রতিনিয়ত আমাদের চোখে সামনে হয়ে চলেছে। তবে এই উপায়ে জালিয়াতি করে পুলিশের জালে অনেক জালিয়াত ধরা পড়েছে। তবে এবার অন্য পন্থা অবলম্বন করে নিজেদের কাজ হাসিল করছে এটিএম জালিয়াতি চক্রের পান্ডারা।

থার্ড পার্টির সাহায্য নিচ্ছে তারা নিজেদের কোনও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার না করে। বিভিন্ন গরিব মানুষকে ভুল বুঝিয়ে তাঁদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত নথিপত্র নিয়ে নেওয়া, এটাই থার্ড পার্টি বা তৃতীয় পক্ষের কাজ হল। মূল জালিয়াতদের হাতে সেই অ্যাকাউন্ট ডিটেইলস থার্ড পার্টি তুলে দেয়। জালিয়াত রা প্রতারণার টাকা সেই গরীব মানুষগুলোর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করে দেয়। আর ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যায় নিজেরা। এ রকমই নিউটাউনে একটি থার্ড পার্টির সন্ধান মিলল।

এই চক্রের তিনজনকে পুলিশ বৃহস্পতিবার গ্রেফতার করেছে। মায়াঙ্ক দিদওয়ানি এদের মূল পান্ডার নাম। রাজস্থানে তার আসল বাড়ি। একটি অফিস খুলে এই চত্বরে প্রতারণার কাজকারবার চালাত তার দুই শাগরেদ অভিজিৎ সরকার ও শ্যামসুন্দর বিশ্বাস বাগুইহাটিতে। নিউটাউন বাস স্ট্যান্ড থেকে ধরেছে পুলিশ এদিন তিনজনকেই। পনেরোটি এটিএম কার্ড বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে এদের কাছ থেকে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নেওয়া। নিউটাউন থানা এদের কাছে পেয়েছে মোবাইলের গোটা দশেক সিম কার্ড।

এরা এদিন নিউটাউন বাস স্ট্যান্ডে ডেকেছিল রাজারহাট ও জ্যাংড়া গ্রামীণ অঞ্চলের কয়েকজন গরিব মানুষকে এটিএম কার্ড দিয়ে যাওয়ার জন্য সরকারি প্রকল্পের টাকা পাইয়ে দেওয়ার টোপ দিয়ে। তাদের হাতে তুলে দিয়ে যাচ্ছিলেন অনেকে সামান্য টাকার বিনিময় কার্ড, পিন নম্বর এবং ব্যাংক অ্যাকাউন্টের ডিটেলস। বাস স্ট্যান্ড থেকে এদেরকে বমাল গ্রেফতার করে, পুলিশ সূত্র মারফত খবর পেয়ে। পুলিশ সূত্রে খবর, ধৃতরা অপরাধ কবুল করে নেয় বলে নিউটাউন থানায় জিজ্ঞাসাবাদের জবাবে।

মূল জালিয়াত চক্রের কাছে পৌঁছে দিত থার্ড পার্টি মায়াঙ্ক, অভিজিৎ ও শ্যামসুন্দর এটিএম কার্ড এবং ব্যাংক অ্যাকাউন্টের ডিটেলস। তারা মোটা টাকা পেত তার বিনিময়ে একাউন্ট পিছু।

তদন্তকারীরা মনে করছেন, ব্যাংক সাইবার প্রতারণার ঘটনায় এই থার্ড পার্টির গুরুত্ব ক্রমশ বাড়ছে। প্রতারিত ব্যক্তির টাকা ঢুকছে অপর এক প্রতারিতের অ্যাকাউন্টে থার্ড পার্টি থাকার ফলে। তদন্তকারীরা মনে করছেন, এই তৃতীয় চক্রের কয়েকজন ধরা পড়ে যাওয়ায় জালিয়াতির মূল চক্রের খোঁজ পেতে সুবিধা হবে।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel