রাজ্য

সাংবাদিক বৈঠকে তৃণমূলকে তীব্র আক্রমন অমিত শাহের, দুর্নীতি প্রশ্নে টানলেন লালা ও ভাইপো প্রসঙ্গ

GNE NEWS DESK: বাংলায় আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের প্রস্তুতি ও প্রচারের ঘন্টা আগাম বাজিয়ে দিলেন অমিত শাহ। সল্টলেকের পূর্বাঞ্চলীয় সংস্কৃতি কেন্দ্রের সাংবাদিক বৈঠকে আগামী ভোটে ২০০ টি আসনে বিজেপির সংখ্যা গরিষ্ঠতার ভবিষ্যতবাণী করলেন। এরপর তীব্র ভাষায় আক্রমণ করলেন তৃণমূল নেতৃত্বকে।

শুক্রবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন অমিত শাহ। সেখান থেকেই বাংলা দখলের প্রতিশ্রুতি দিলেন বিজেপির বর্ষীয়ান নেতা। বললেন, পাঁচ বছরের জন্যে সোনার বাংলা তৈরি হবে। সেই সঙ্গে একাধিক প্রসঙ্গে তৃণমূলকে আক্রমণ অমিত শাহের। লালার সঙ্গে তৃণমূলের কি সম্পর্ক তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, লালা অবৈধ কয়লা কারবারের সঙ্গে যুক্ত। তাঁর নামে একাধিক অবৈধ কয়লা খনি রয়েছে। অভিযোগ কোটি কোটি টাকার কেলেঙ্কারি ও একাধিক প্রভাবশালীর সঙ্গে সুসম্পর্কের। সেই তালিকায় একাধিক তৃণমূল নেতার নামও রয়েছে বলে অনুমান।

তৃণমূল সরকারকে আক্রমণ করে অমিত শাহ বলেন, “লালার টাকা কোথায় যায়? লালার বাড়িতে তল্লাশি হলে ওঁর সমস্যা কোথায়? লালার সঙ্গে তৃণমূলের কী সম্পর্ক?”
শাহ দাবি করেন, তৃণমূল সরকারের অন্তিম সময় আসন্ন। আগামী ভোটে বিজেপি নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে বাংলায় সংখ্যা গরিষ্ঠ হয়ে সরকার গড়বে।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কেও কটাক্ষ করেন তিনি। বলেন, “বাংলায় তিনটি আইন। একটা ভাইপোর জন্য, একটা ভোট ব্যাংকের জন্য আর একটা সাধারণ মানুষের জন্য।”

অনেক দিন ধরেই ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক তথা বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বিজেপিতে যোগ দেওয়া নিয়ে জল্পনা রয়েছে বিভিন্ন মহলে। সম্প্রতি রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার হতে পারেন বলেও গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। এই বিষয়ে প্রশ্ন‌ের মুখে পড়েন অমিত শাহ। উত্তরে বলেন, “দু’টি নাম বলছেন কেন, তালিকা অনেক লম্বা। অনেকের সঙ্গেই নিয়মিত কথা চলছে।”  তবে সেই লম্বা তালিকায় কারা রয়েছেন সেই ব্যাপারে কোনও ইঙ্গিতও দেননি তিনি। বলেন, সময় এলেই সব দেখা যাবে। এখনও তো ছ’মাস সময় আছে। 

অমিত শাহের সাংবাদিক সম্মেলনের পরেই পাল্টা সাংবাদিক বৈঠকে বসেন তৃণমূল নেতা সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়। তাঁর বক্রোক্তি, “বিজেপি দিবাস্বপ্ন দেখছে।” তিনি আরও বলেন, “২০২১ সালের ভোটে জেতাটাই তো বিজেপির অলীক কল্পনা। তারপর হয়ত উনি টস করে ঠিক করবেন কে হবেন মুখ্যমন্ত্রী।”

সিপিআই(এম) নেতা মহম্মদ সেলিম বলেন, “তৃনমূল নেত্রীর মতোই অমিত শাহ সরকারী ব্যবস্থাপনার অপব্যবহার করে দলীয় কর্মসূচি করছেন।”

সবমিলিয়ে অমিত শাহের বাংলা সফরকে ঘিরে রাজ্য রাজনীতি সরগরম হয়ে উঠেছে।

Advertisement with GNE Bangla

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel