প্রথম পাতা ভোট বাংলা আজকের রাশিফল সকালের বাংলা কর্ম সন্ধান পশ্চিম বাংলা বাংলার জেলা ভারতবর্ষ বিশ্ব বাংলা খেল বাংলা প্রযুক্তি বাংলা বিনোদন বাংলা        লাইফস্টাইল বাংলা EXCLUSIVE বাংলা GNE TV
রাজনীতিরাজ্য

ব্রিগেডের মঞ্চে একসাথে জোটের নেতারা, “দিদি-মোদীকে নকআউট করতে হবে”, দেওয়া হল বার্তা

ব্রিগেডের মঞ্চে একসাথে জোটের নেতারা, “দিদি-মোদীকে নকআউট করতে হবে”, দেওয়া হল বার্তা

GNE NEWS DESK: আভাস আগেই মিলেছিল। ভোটের আগের ব্রিগেড সভায় একত্রিত হল বাম, কংগ্রেস ও ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট। আর ভরা মঞ্চ থেকে বিজেপি ও তৃণমূলকে নিশানা করলেন মহম্মদ সেলিম, অধীর চৌধুরী, আব্বাস সিদ্দিকিরা। সীতারাম ইয়েচুরি, বিমান বসু, অধীর চৌধুরী, আবদুল মান্নান, ডি রাজা, ভূপেশ বাঘেল, আব্বাস সিদ্দিকি, সূর্যকান্ত মিশ্ৰ সহ একাধিক জোটের নেতা উপস্থিত ছিলেন রবিবাসরীয় ব্রিগেডের মঞ্চে।

সমাবেশের শুরুর পরেই বক্তৃতা দেন সিপিএম নেতা বিমান বসু। ব্রিগেডের সমাবেশকে ঐতিহাসিক ভিড় বলে দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, যাঁরা বলেন বামেদের দূরবিন দিয়ে দেখতে হয়, তাঁরা আজকের সমাবেশের খবর নিন। সমাবেশের পর এক দিকে থাকবে বিজেপি-তৃণমূল। অন্য দিকে থাকব আমরা সবাই।
বক্তৃতা দেন ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা নরেন চট্টোপাধ্যায়। বিজেপিকে ‘ভারতীয় ঝঞ্ঝাটিয়া পার্টি’ বলে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, গ্রামে গ্রামে সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী ফৌজ গড়া হবে। তৃণমূলকে ‘স্বৈরাচারী’ বলেও কটাক্ষ করেন তিনি।

বক্তব্য রাখেন কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী। এত বড় সভায় বক্তৃতার সুযোগ দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, যারা আগামী নির্বাচনকে বোঝাতে চাইছে তৃণমূল এবং বিজেপির লড়াই, তাদের মিথ্যা প্রমাণ করে দিয়েছে এই সমাবেশ। আগামী দিনে তৃণমূল, বিজেপি থাকবে না, সংযুক্ত মোর্চা থাকবে। বাংলায় সাম্প্রদায়িক বিজেপির আগ্রাসন রুখতে হবে, তৃণমূলের অপশাসনকেও রুখতে হবে। গণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতায় এসে এঁরা গণতন্ত্রের গলা টিপে ধরছেন, দিল্লিতে মোদী বলেন, বিরোধী শূন্য চাই, এখানে দিদিও তাই বলেন। সঙ্গে তাঁর স্লোগান, “ইয়ে স্রেফ ঝাঁকি হ্যায়, সরকার বদলনা বাকি হ্যায়”।

আইডিএফ নেতা আব্বাস সিদ্দিকিও উপস্থিত ছিলেন মঞ্চে। নিজের বক্তব্যে তিনি বলেন, বামেরা আমাদের দাবি মেনে নিয়েছে। আগামী দিন বিজেপি সরকার এবং তার বি-টিম মমতা সরকারকে বাংলা থেকে উৎখাত করব। পিছিয়ে পড়া মানুষদের অধিকার বুঝে নিতে হবে, বন্ধুত্বের হাত মেলানো দরকার হলে তাদের হয়েও আব্বাস সিদ্দিকি লড়াই করবে। আমরা ভারতীয়, আমরা গর্বিত, ভিক্ষা নয়, অধিকার চাই।

মহম্মদ সেলিম বক্তব্যে বলেন, কেউ কেউ বলল, খেলা হবে। আর মোদিজী স্টেডিয়ামই দখল করে নিলেন। বসন্ত এসে গিয়েছে। লালরঙা ফুল ফোটা কেউ আটকাতে পারবে না। ঝরা পাতার দিন শেষ। কচি পাতা উঁকি দিচ্ছে। এক দশক ধরে দিদি-মোদীর খেলা চলছে। এ বার ওদের মাঠ থেকে নকআউট করতে হবে। এক দিকে দলবদলের লড়াই, আর এক দিলে চলছে দিনবদলের লড়াই। কাকের বাসায় কোকিলের ডিম ফুটে আবার ফিরে যাচ্ছে। যে চিটফান্ডের টাকা লুঠ করেছিল সে মোদীর কাছে গিয়ে বলছে চিটফান্ড কাণ্ডের অপরাধীদের শাস্তি দেব। কর্মহীন, অন্নহীন বাংলা তৈরি হয়েছে। যে দিন থেকে তৃণমূল ক্ষমতায় এসেছে সে দিন থেকে বিভাজনের রাজনীতি হয়েছে। আমরা ক্ষমতায় এলে যারা লুঠ করেছে তাদের বাড়ি, সে ‘শান্তিনিকেতন’ হলেও নিলাম করব। সমস্ত শূন্যপদ পূরণ করব। নিয়মিত এসএসসি হবে, মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের পরীক্ষা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন সেলিম।

একই রকমের খবর