প্রথম পাতা ভোট বাংলা আজকের রাশিফল সকালের বাংলা কর্ম সন্ধান পশ্চিম বাংলা বাংলার জেলা ভারতবর্ষ বিশ্ব বাংলা খেল বাংলা প্রযুক্তি বাংলা বিনোদন বাংলা        লাইফস্টাইল বাংলা EXCLUSIVE বাংলা GNE TV
রাজ্যরাজনীতি

বামেদের প্রশংসা শুভেন্দু অধিকারীর, রাজনৈতিক সমীকরণ নিয়ে উঠছে প্রশ্ন

Leftist praise Shuvendu Adhikari, questions have been raised about the political equation

GNE NEWS DESK: সদ্য তৃণমূল ত্যাগ করে বিজেপিতে এসেছেন। আসা মাত্রই বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে বিশেষ গুরুত্ব আদায় করে নিয়েছেন তিনি। এমনকি রাজনৈতিক অলিন্দে পিছনে ফেলেছেন বিজেপির তাবড় রাজ্য নেতৃত্বকেও। রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধী ব্যক্তিত্ব হিসাবে দ্রুত উত্থান হচ্ছে তাঁর। এই পরিস্থিতিতে বিভিন্ন সভায় বাম তথা সিপিএমের ভোট চাইছেন, সিপিএমের প্রশংসা করছেন শুভেন্দু অধিকারী। যা রাজনৈতিক মহলের কৌতূহলের উদ্রেগ করছে।

রাজ্য রাজনীতিতে শুভেন্দু অধিকারীর উত্থান মূলত নন্দীগ্রাম আন্দোলনের মাধ্যমে। সেই আন্দোলনে তাঁকে মোকাবিলা করতে হয়েছিল তৎকালীন শাসক বামেদের। বাম বিরোধী হিসেবেই শুভেন্দুর পরিচিতি। অন্য দিকে জাতীয় রাজনীতিতে বিজেপি – বাম পরস্পর বিরোধী হিসেবেই পরিচিত নিজেদের নীতির কারনে। এমতবস্থায় শুভেন্দু তৃণমূলের সমালোচনা করতে গিয়ে কখনও বামেদের প্রশংসা করছেন, আবার কখনও বাম-কংগ্রেসের কাছে বিজেপিকে ভোট দেওয়ার জন্য আবেদন জানাচ্ছেন।

সম্প্রতি পূর্ব মেদিনীপুরের সভা থেকে শুভেন্দু অধিকারী বলেছেন, “বাম-কংগ্রেসকে বলছি, আপনারা মিছিল, মিটিং করছেন করুন কিন্তু ভোটটা বিজেপিকে দিন।” আবার গুড়াপের সভা থেকে শুভেন্দু অধিকারী রীতিমতো সিপিএম এর প্রশংসা করে বলছেন, “গত ২০১৮ তে পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল যে ভাবে মনোনয়ন জমা দিতে বিরোধীদের বাধা দিয়েছে, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩৫% পঞ্চায়েত আসন ছিনিয়ে নিয়েছেন, সেটা কখনও হয়নি। সিপিএম কোনওদিন লাঠি নিয়ে নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দিতে বিরোধীদের মারেনি।”

যা নিয়ে কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে বিজেপি নেতৃত্ব। কারণ গত লোকসভা ভোটের পর থেকেই স্থানীয় স্তরে বিজেপি-বামেদের আঁতাতের অভিযোগ এনেছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। অভিযোগ উঠেছে বাম ভোট তৃণমূল বিরোধী ভোটে পরিবর্তিত হয়ে জমা হয়েছে বিজেপির খাতায়। লোকসভা ভোটের পরিসংখ্যানেও তা কিছুটা হলেও প্রতিভাত হয়েছে। এখন শুভেন্দু মতো বাম বিরোধীর মুখে আচমকা বাম স্তুতি অনেকেই ভোটের অঙ্কে রাজনৈতিক সমীকরণ হিসাবে দেখছেন। এমনও মনে করা হচ্ছে, বিজেপি ২০০ টি আসন জয়ের লক্ষ্যমাত্রা রাখলেও নিজেদের জয় নিয়ে শুভেন্দু কিছুটা হলেও সন্দিহান।

তাই রাজনৈতিক মন্তব্যের মাধ্যমে রাজ্যের তৃণমূল বিরোধী ভোটকে নিজের দিকে আনতে উদ্যোগী হয়েছেন। এমনিতেই রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বাঙালি-অবাঙালি, ধর্মীয় বিভাজন প্রভৃতি বিভিন্ন তত্ত্ব উঠে এসেছে। এখন শুভেন্দুর বিভিন্ন মন্তব্য বিধানসভা ভোটের প্রাক্কালে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্বের অস্বস্তি যেমন বৃদ্ধি করছে, তেমনই নতুন ভোট সমীকরণের ইঙ্গিত দিচ্ছে এমনটাই মত রাজনৈতিক মহলের।

একই রকমের খবর

Back to top button
Use GNE Bangla App Install Now
Subscribe YouTube Channel