প্রথম পাতা করোনা আপডেট আজকের রাশিফল সকালের বাংলা কর্ম সন্ধান পশ্চিম বাংলা বাংলার জেলা ভারতবর্ষ বিশ্ব বাংলা খেল বাংলা প্রযুক্তি বাংলা বিনোদন বাংলা লাইফস্টাইল বাংলা EXCLUSIVE বাংলা GNE TV
রাজ্যভোটযুদ্ধ

বাঙালির সম্প্রীতি বজায় রাখার প্ৰচেষ্টা বিজেপির হারের কারন, সমীক্ষা আরএসএসের

GNE NEWS DESK: বাংলায় অপ্রত্যাশিত ফলাফলের পরেই বিজেপির দলীয় অন্দরে শুরু হয়েছে সমীক্ষা। আরএসএসও তেমনটাই চাইছে। বিশেষত দলত্যাগী তৃণমূল নেতাদের দলে এনে প্রার্থী করার বিষয়টি প্রশ্নের মুখে। কারন একমাত্র শুভেন্দু অধিকারী ছাড়া অন্য কোন দলবদলকারী নেতা জেতেন নি। তাঁদের জন্য বিজেপির অন্দরমহলে আদি বিজেপি ও নব্য বিজেপির সংঘাত শুরু হয়েছে। এবং এই নেতারা দলে আসায় গত দশ বছরে তৃণমূলের প্রতি মানুষের পুঞ্জীভূত ক্ষোভকে ব্যবহার করতে পারেনি বিজেপি। এছাড়াও অন্য একটি তত্ত্বও সামনে আসছে। বাঙালির সংস্কৃতির কারণে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির প্রতি আস্থাতে চিড় ধরানো যায়নি।

আরএসএস নেতাদের অভিমত, পশ্চিমবঙ্গের বাঙালি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য ধরে রাখতে বদ্ধপরিকর। তাই তৃণমূল সরকারের সংখ্যালঘু তোষণ নিয়ে ক্ষুব্ধ হলেও তাঁরা বিজেপিকে আটকাতে তৃণমূলকে ভোট দিয়েছেন। তবে বিজেপি ক্ষমতায় না-এলেও ‘হিন্দুত্ব’ প্রসঙ্গটিকে বাংলার রাজনৈতিক বিতর্কের অংশ করে তোলা গিয়েছে বলে মনে করছেন অনেকেই। সংখ্যালঘু তোষণের বিপদ তুলে ধরা সম্ভব হয়েছে বলেও ধারণা অনেক নেতার। সেই যুক্তির সপক্ষে তাঁদের প্রমান, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির বিপুল বৃদ্ধি। এক অংকের বিধায়ক সংখ্যা থেকে তা বাড়িয়ে ৭৬ করা গিয়েছে, যা বাংলার মতো রাজনৈতিক ক্ষেত্রের নির্বাচনে খুব একটা কম সাফল্য নয়। অন্যদিকে বাম-কংগ্রেস শূন্য হওয়ার কারণে তৃণমূলের প্রধান বিরোধী দল হিসেবে এখন বিজেপিই আলোচিত হবে। যা একদিকে সাফল্যের নামান্তর হিসেবেই দেখছে কিছু নেতৃত্ব।

অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গের ভারপ্রাপ্ত বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয় জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ফলাফল নিয়ে বিস্তারিত সমীক্ষা হবে। কিন্তু কংগ্রেস, বাম নিজেদের ভোট তৃণমূলের ঝুলিতে ফেলাতেই বিজেপি হেরেছে বলেও এক সাক্ষাৎকারে তিনি অভিযোগ তুলেছেন। তাঁর দাবি, অন্তত ৯ শতাংশ ভোট বাম-কংগ্রেস থেকে তৃণমূলের দিকে গিয়েছে। তবে আরএসএস এর বিশ্লেষণ, সংখ্যালঘুরা একত্রিত হয়ে ভোট দিয়েছে তৃণমূলকে। কিন্তু স্বাভাবিক নিয়মেই হিন্দুরা বিজেপিকে ভোট দেননি। তবে বিজেপি প্রধান বিরোধী দল হয়ে ওঠায় আগামী দিনে মমতার পক্ষে আর সংখ্যালঘু তোষণের নীতি নেওয়াটা সম্ভব হবে না এটাকেই বাংলায় রাজনৈতিক জয় হিসেবে দেখছেন তাঁরা।

GNE

Related Articles

x